আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ভারতে কোভিড আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২ কোটি ছাড়িয়েছে। আর মৃত্যু ২ লাখ ২২ হাজারের বেশি।এদিকে দিল্লিতে অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থাপনা সামলাতে সেনাবাহিনীকে অনুরোধ করেছেন হাইকোর্ট।

যাতে কোভিড হাসপাতালগুলির অক্সিজেন পেতে কোনও অসুবিধা না হয়, সেজন্যই সেনাবাহিনীকে দায়িত্ব নিতে অনুরোধ করেছিল হাইকোর্ট। সোমবার ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার জানায়, তারা দিল্লি হাইকোর্টের অনুরোধটি গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখছে।

এদিকে, ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস ডট ইনফোর তথ্য অনুযায়ী,শেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন ৩ লাখ ৫৫ হাজার ৮২৮ জন শনাক্ত হয়ে ভারতে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন ২ কোটি ২ লাখ ৭৫হাজার ৫৪৩ জন।

মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী সর্বোচ্চ মৃত্যও হয়েছে ভারতে। গত একদিনে ভারতে ৩ হাজার ৪৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর ফলে দেশটিতে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছ ২ লাখ ২২ হাজার ৩৩৮ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন এক কোটি ৬৬ লাখ ৭০৩ জন।

এই নিয়ে টানা ১৩তম দিনের মতো ভারতে তিন লাখের বেশি রোগী শনাক্ত হল।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে নতুন এ ধরনের সংক্রমণে নাকাল অবস্থা ভারতের। দিনে দিনে বাড়ছে রোগী, বাড়ছে মৃত্যু। শ্মশানে দিন-রাত জ্বলছে চিতা।

করোনাভাইরাসের নতুন ধরনটির নাম গবেষকেরা দিয়েছেন ‘বি-ওয়ান-সিক্সসেভেনটিন’। গত অক্টোবরে এটি প্রথম শনাক্ত হয়।

সেই সময় সবে ভারত করোনার প্রথম ধাক্কা সামাল দিয়ে উঠছে। তবে গত মার্চ থেকে দেশটিতে সংক্রমণ আবার বাড়তে শুরু করে। গবেষকরা বলছেন, দেশটিতে এটি করোনার দ্বিতীয় ঢেউ।

মেডিকেল বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ১৩৫ কোটি জনসংখ্যার দেশটিতে প্রকৃত আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা সরকারি হিসাবের চেয়ে পাঁচ থেকে ১০ গুণ বেশি হবে।

তবে সংক্রমণ এবং মৃত্যু বাড়লেও দেশটিতে এখনও কঠোর লকডাউন আরোপ করেনি দেশটির সরকার প্রধান।

গত বছরের ৩০ জানুয়ারি ভারতে প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির করোনাভাইরাস রিসোর্স সেন্টারের তথ্য অনুযায়ী, সংক্রমণের দিক থেকে বর্তমানে বিশ্বে ভারতের অবস্থান প্রথমে। ভারতের পরে রয়েছে ব্রাজিল ও যুক্তরাষ্ট্র।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *