মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি:
মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।
ভুক্তভোগীর পরিবার জানান, গেলো তিন সেপ্টেম্বর ১৫ বছরের ওই কিশোরী জ্বর ও শরীর ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়।

১১ সেপ্টেম্বর রাতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্স বলেন, পরের দিন তাকে ছুটি দেওয়া হবে।

কিন্তু রাত ১১টার দিকে মেয়েকে বিছানায় না দেখতে পেয়ে তার মা খোঁজাখুঁজি করতে থাকেন। একপর্যায়ে হাসপাতালের বারান্দায় রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে পাওয়া যায়। কর্তব্যরত নার্স মেয়েটির অবস্থা গুরুতর দেখে চিকিৎসককে জানান। পরে চিকিৎসক এসে মেয়েটিকে ওই রাতেই মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন।

মেয়েটির পরিবারের দাবি, এক যুবক জোর করে তাকে তিনতলা থেকে হাসপাতালের নিচতলায় নিয়ে যায়। এরপর ধর্ষণ করে আবার তিন তলার বারান্দায় ফেলে রেখে যায়। হাসপাতালের সিসি ক্যামেরায় ওই দিনের ফুটেজ দেখলে ধর্ষকের পরিচয় জানা যাবে।
তারা আরও জানান, মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালে তিন দিন থাকার পর ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়।

সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মামুনুর রশীদ জানান, এ ঘটনায় শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. সাদিককে প্রধান করে গেলো শনিবার সাত সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছে। দুই কর্ম দিবসে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।
ঘটনা যেই ঘটাক না কেন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান ডা. সাদিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *