জেলা প্রতিনিধি,জামালপুর:
রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কোয়ার্টার থেকে সুলতানা পারভীন (৩৭) নামে এক গাইনি চিকিৎসকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

ব্যক্তিজীবনে অবিবাহিত ডাক্তার সুলতানা পারভীন ৩২তম বিসিএসের মেডিকেলের গাইনি ডাক্তার ছিলেন। তিনি মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া এলাকার আলাউদ্দিন আজাদ ও রহিমা আজাদের মেয়ে।

দীর্ঘদিন ধরে তারা ঢাকার মোহাম্মদপুরের মোহাম্মদী আবাসিক এলাকায় (২৮/এ নং বাসা, রোড নং-৩) থাকেন। ২০১৮ সালের ১৬ আগস্ট মেলান্দহ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যোগদানের পর থেকে তিনি ওই কমপ্লেক্সের কোয়ার্টারে একাই বসবাস করতেন। মাঝে মাঝে তার মা গিয়ে সেখানে থাকতেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ফজলুল হক বলেন, আজ ডাক্তার সুলতানা পারভীন অফ ডিউটিতে ছিলেন। সারাদিন তার ঘরের দরজা বন্ধ থাকায় সন্দেহ হয়। মেলান্দহ থানাকে বিষয়টি অবহিত করি। পুলিশ এসে ঘরের দরজা ভেঙে রুমে প্রবেশ করে তাকে মৃত অবস্থায় পায়।

খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সীমা রানী ও সার্কেল এসপি ছামিউল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম জানান, ডাক্তার সুলতানা পারভীনের শরীরে প্যাথেডিন পুশের আলামত পাওয়া গেছে। এটা আত্মহত্যা কিনা, ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে।

মেলান্দহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তামিম আল ইয়ামীন জানান, ডাক্তার পারভীন সুলতানার পরিবারের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা চলছে। যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নিতে ওসিকে নির্দেশ দিয়েছি। মৃত্যুর কারণ ডাক্তারগণ বলতে পারবেন। ওসি রেজাউল করিম এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সীমা বিশ্বাস ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *