জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক:
রিজেন্ট হাসপাতালের প্রতারণাকাণ্ডে তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে যাকে প্রয়োজন তাকেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সচিব দিলওয়ার বখত। তিনি বলেন, ‘রিজেন্টকাণ্ডে প্রয়োজন হলে স্বাস্থ্যমন্ত্রীকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

সোমবার (১৭ আগস্ট) বিকেলে এক অডিও বার্তায় সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

দুদক সূত্রে জানা যায়, স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে কয়েকটা ইস্যুতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে। তেমন প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে। মোহাম্মদ সাহেদকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদের প্রেক্ষিতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে বলে জানা যায়।

করোনার চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সঙ্গে সমঝোতা স্মারকে সই করেন রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ। তাঁর পাশে বসা স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ। পেছনে দাঁড়ানো সাবেক স্বাস্থ্যসচিব, বর্তমান স্থানীয় সরকারসচিব, জননিরাপত্তাসচিবসহ অন্য কর্মকর্তারা। ২১ মার্চের এই ছবি এখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের বিষয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানতেন। তিনিই স্থানীয় সরকার ও জননিরাপত্তা বিভাগের সচিবকে ওই অনুষ্ঠানে থাকার জন্য অনুরোধ করেছিলেন। বিষয়টি জানতেন সে সময় স্বাস্থ্যসচিবের দায়িত্বে থাকা আসাদুল ইসলামও।

গত ২১ মার্চ মহাখালীতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কক্ষে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের আগে করোনাসংক্রান্ত একটি বৈঠক হয়। এর পরপরই উপস্থিত সচিবেরা যখন বের হয়ে যাওয়ার উদ্যোগ নেন, তখন মন্ত্রী তাঁদের বসতে বলেন। এ সময় চা-নাশতা দেওয়া হয়। এরপরই মহাপরিচালকের কক্ষে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ঢোকেন। পরে মন্ত্রীর অনুরোধে অন্য সচিবদের উপস্থিতিতে চুক্তি স্বাক্ষর হয়। অথচ মন্ত্রী ও মন্ত্রণালয় এখন এ বিষয়ে কিছু জানে না বলছে।

ওই অনুষ্ঠানের একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, সমঝোতা স্মারকে সই করছেন মো. সাহেদ। তাঁর পাশে বসা স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ। পেছনে দাঁড়ানো অবস্থায় দেখা যায় সাবেক স্বাস্থ্যসচিব, স্থানীয় সরকারসচিব ও জননিরাপত্তাসচিবকে।

স্বাস্থ্যসচিবের দায়িত্বে থাকা আসাদুল ইসলামকে গত ৪ জুন সরিয়ে পরিকল্পনা বিভাগের সচিব করা হয়েছে। জানা যায়, তাঁর নির্দেশে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) আমিনুল হাসান।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *