নিজস্ব প্রতিবেদক:

শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন সেকেন্ডারি এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম (এসইডিপি) এর অনুকূলে ৬২ মিলিয়ন ইউ এস ডলার অর্থ ঋণ ছাড় করেছে বিশ্ব ব্যাংক।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিশ্ব ব্যাংকের এ ঋণের টাকা দিয়ে সেকেন্ডারি এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম নামের একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে।

সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

করোনাকালীন বাংলাদেশে চলমান প্রকল্পগুলোর মধ্যে এটি সর্বোচ্চ ঋণ ছাড়। এ ঋণের জন্য বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশকে ৩৫টি শর্ত দিয়েছিল। এর মধ্যে চলতি বছরের জন্য নির্ধারিত ছয়টি শর্ত সন্তোষজনকভাবে সম্পন্ন করায় এ ঋণের অর্থ ছাড় করা হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

সেকেন্ডারি এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম এ ৮টি ক্ষেত্রে ৩৫টি ফলাফল অর্জনের প্রেক্ষিতে ৫১০ ইউএস মিলিয়ন ডলারের ঋণ সহায়তা দেয়ার বিষয়ে ২০১৮ সালে বিশ্বব্যাংক এর সাথে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এর মধ্যে এ বছরের জন্য নির্ধারিত ৬টি শর্তের ফলাফল সন্তোষজনক হওয়ায় এই ৬২ মিলিয়ন ইউএস ডলার ছাড় করা হয়েছে।

গত রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব বরাবরে এ সংক্রান্ত চিঠি দেয় বিশ্বব্যাংক। অর্জিত ফলাফল বিশ্ব ব্যাংক নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় যাচাই করে এবং অর্জিত ফলাফলে তারা সন্তুষ্টি প্রকাশ করে।

অর্জিত ৬টি ফলাফলের মধ্যে রয়েছে পঞ্চম শ্রেণি সম্পন্ন করার পর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রবেশের পূর্বে শিক্ষার্থীদের সক্ষমতা যাচাইয়ের লক্ষে ডায়াগনস্টিক এ্যাসেসমেন্ট গাইড লাইন তৈরি করা, শিক্ষকদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে টিচিং সময় মনিটরিং করার গাইড লাইন তৈরি করা, হারমোনাইজ স্টাইপেন্ড ব্যবস্থা চালু করাসহ শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিভিন্ন সংস্থার আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধি করা সংক্রান্ত।

গত ১৩ ডিসেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব বরাবরে এ সংক্রান্ত চিঠি দেয় বিশ্বব্যাংক। অর্জিত ফলাফল বিশ্ব ব্যাংক নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় যাচাই করে এবং অর্জিত ফলাফলে তারা সন্তুষ্টি প্রকাশ করে। অর্জিত ছয়টি ফলাফলের মধ্যে রয়েছে পঞ্চম শ্রেণি সম্পন্ন করার পর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রবেশের পূর্বে শিক্ষার্থীদের সক্ষমতা যাচাইয়ের লক্ষে ডায়াগনিস্টিক অ্যাসেসমেন্ট গাইড লাইন তৈরি করা, শিক্ষকদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়ানোর সময় মনিটরিং করার গাইড লাইন তৈরি করা, হারমোনাইজ স্টাইপেন্ড ব্যবস্থা চালু করাসহ শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিভিন্ন সংস্থার আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধি করা সংক্রান্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *