জেলা প্রতিনিধি,কক্সবাজার:

জেলার উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে রোববার রাত থেকে সোমবার পর্যন্ত আনাস ও মুন্না গ্রুপের মধ্যে  দফায় দফায় হামলার ঘটনায় মোহাম্মদ ইয়াছিন (২৪) নামে আরও এক রোহিঙ্গা যুবক খুন হয়েছে। এ নিয়ে গত ৫ দিনে ক্যাম্পের অভ্যন্তরে ৪ জন খুন হয়েছে। হামলা ও হত্যার ভয়ে ক্যম্পের বাসিন্দাদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

নিহত মোহাম্মদ ইয়াছিনের পিতার নাম নাসিম মিয়া। সোমবার সন্ধায় ক্যাম্পের ভিতর থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত ব্যক্তি (২৪) কুতুপালং ডি-৪, ২ ওয়েস্ট ক্যাম্পের বাসিন্দা ছিল বলে জানিয়েছে, প্রধান মাঝি মো: ওসমান গণি।

ওসমান গণি বলেন,আনাস গ্রুপ ও মুন্না গ্রুপের মধ্যে সংঘটিত ঘটনায় প্রাণ বাঁচাতে কয়েক’শ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ কুতুপালং ক্যাম্প ছেড়ে অন্য ক্যাম্পে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিয়েছে। বর্তমানে ক্যাম্পের অভ্যন্তরে দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। রোহিঙ্গা শিবিরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা টহলও বাড়িয়েছে।

রোহিঙ্গাদের এ প্রতিনিধি আরও জানান,ক্যাম্প ২ ওয়েস্ট ডি-ব্লকে রোববার রাতে মুন্না গ্রুপের ৪-৫ শত রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা দা-লাঠিসোটা নিয়ে ক্যাম্পের শতাধিক ঝুপড়ী ঘর ও ৫০টি দোকান ভাংচুর করেছে।

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে দুই গ্রুপের মধ্যে হামলা, ভাংচুর, গোলাগুলির ঘটনা ঘটছে বলে রোহিঙ্গারা জানিয়েছে।প্রতিরাতেই ক্যাম্পগুলোতে শোনা যায় গুলির শব্দ।

স্থানীয় প্রশাসন জানান, নতুন এবং পুরাতন রোহিঙ্গাদের মধ্যে বিরোধের জের ধরে খুনের ঘটনাগুলো ঘটছে।রোহিঙ্গারা খুন, ধর্ষণ, মাদক পাচার, অস্ত্র ও স্বর্ণ ব্যবসার মতো অসংখ্য অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েছে বলেও  প্রশাসন দাবি করছে।

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *