আদালত প্রতিবেদক:
রাজধানীর উত্তরায় সড়কে এক প্রকৌশলীকে মারধরের ঘটনায় জনপ্রিয় টিকটকার অপু ওরফে অপু ভাই ওরফে অফু ভাইকে এক সহযোগীসহ কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদা আক্তার রিমান্ড ও জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে এ আদেশ দেন।

উত্তরা আলাউল অ্যাভিনিউতে মারামারির ঘটনায় গত সোমবার (৩ আগস্ট) সন্ধ্যায় টিকটকার অপু ভাই ও তার এক সহযোগী নাজমুলকে গ্রেফতার করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে তাদের আদালতে হাজির করে তিনদিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উত্তরা পূর্ব থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আজিজুল হক।

অপরদিকে আসামিপক্ষে আইনজীবী রিমান্ড বাতিল পূর্বক জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে রিমান্ড ও জামিন আবেদন নাকচ করে বিচারক তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে ভুক্তভোগী প্রকৌশলী মেহেদী হাসান রবিন বলেন, গত রোববার (২ আগস্ট) সন্ধ্যায় আমি কোরবানির মাংস দিতে শ্বশুরবাড়িতে গিয়েছিলাম। সেখান থেকে ফেরার পথে প্রাইভেটকারে আমি ও আমার তিন বন্ধু ছিলাম। উত্তরা আলাউল অ্যাভিনিউতে যাওয়ার পর দেখি আনুমানিক ৪০/৫০ জন পুরো সড়ক বন্ধ করে কিছু একটা করছে।

তখন আমরা যাওয়ার জন্য হর্ন দিচ্ছিলাম। পরে দেখি ওরা টিকটক শ্যুটিং করছে। পরে তারা গাড়ির সামনে এসে বাজে মন্তব্য করছিল। তখন আমি গাড়ি থেকে নেমে জিজ্ঞেস করি, কি সমস্যা? এতেই ওরা আমাদের ওপর চড়াও হয় এবং মারধর শুরু করে। এক পর্যায় ওরা আমার মাথায় আঘাত করে এবং দেশীয় অস্ত্র দিয়ে ভয়ভীতি দেখায়। পরে সেখান থেকে হাসপাতালে গিয়ে ট্রিটমেন্ট নেই। আমার মাথায় তিনটি সেলাই লেগেছে।

সোমবার সকালে ওই প্রকৌশলীর বাবা এস এম মাহবুব আলম বাদী হয়ে উত্তরা পূর্ব থানায় আটজনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ২০/২৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এজাহারভুক্ত আসামির মধ্যে টিকটকার অপু ভাই (২০), শাহাদাত হোসেন (৩০), রনি (২৫), জসিম উদ্দিন (৪৫), মুরাদ (২২), নাজমুল (২১), শাকিল (২৫) ও সানি (২২) রয়েছেন।

ওই মামলার ভিত্তিতে সোমবার সন্ধ্যায় উত্তরা আলাউল অ্যাভিনিউ এলাকায় অভিযান চালিয়ে টিকটকার অপু ভাই ও তার এক সহযোগী নাজমুলকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *