নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) নতুন অঞ্চল পরিকল্পনায় (ডিটেইল এরিয়া প্লান বা ড্যাপ) প্রস্তাব করা হয়েছে রাজধানীতে এখন থেকে ব্যক্তি পর্যায়ে ৮ তলার চাইতে বেশি উচ্চতার ভবন নির্মাণে অনুমোদন না দেয়ার। আগামী ডিসেম্বরে প্রস্তাবটি  চূড়ান্ত হওয়ার কথা রয়েছে। নতুন এই ড্যাপের মেয়াদ হবে ২০ বছর।

ঢাকার কিছু ব্যতিক্রম এলাকা ছাড়া সব এলাকার জন্য প্রযোজ্য হবে এই প্রস্তাবটি। এবং রাজউকের আওতাধীন নারায়ণগঞ্জ সিটি,গাজীপুর সিটি ও সাভার পৌর এলাকায় আবাসিক ভবন হবে সর্বোচ্চ ৬ তলা।

রাজউক বলছে, ঢাকা শহরের স্বার্থেই এই প্রস্তাব যুক্ত করা হয়েছে। এটি বাস্তবায়িত হলে ঢাকা শহরের ওপর চাপ কমবে ও নাগরিক সেবার মানও বাড়বে।

গত ২ সেপ্টেম্বর গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে নতুন ড্যাপের খসড়া আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করা হয়। এতে জনঘনত্ব অনুযায়ী ভবনের এমন উচ্চতা নির্ধারণের পাশাপাশি জরিমানা দিয়ে অনুমোদনহীন ভবন বৈধ করা, ভূমির পুনরুন্নয়ন, ভূমি পুনর্বিন্যাস, উন্নয়ন স্বত্ব প্রতিস্থাপন পন্থা (জলাশয় রক্ষাসংক্রান্ত পরিকল্পনা), ট্রানজিটভিত্তিক (পরিবহনের স্টেশন) উন্নয়নসহ বেশ কিছু নতুন কর্মকৌশল যুক্ত করা হয়েছে, যেগুলো আগের কোনো পরিকল্পনায় ছিল না।

নতুন ড্যাপের বিভিন্ন দিক নিয়ে অংশীজনদের মতামত নিচ্ছে রাজউক। অনলাইনে রাজউকের ওয়েবসাইটে ও সরাসরি রাজউক কার্যালয়ে গিয়ে মতামত দেয়ারও সুযোগ রয়েছে। এটি চলবে আগামী ৪নভেম্বর পর্যন্ত।

নতুন ড্যাপ পর্যালোচনা করে দেখা যায়, রাজউকের অন্তর্ভুক্ত ১ হাজার ৫২৮ বর্গকিলোমিটার এলাকাকে মোট ৪৬৮টি (ব্লক) ভাগ করা হয়েছে। পরে জরিপ করে প্রতিটি ব্লকের জনসংখ্যার ধারণক্ষমতা, সড়ক অবকাঠামো, নাগরিক সুবিধা এবং সেখানে উন্নয়নের ধরনের ওপর ভিত্তি করে আবাসিক ভবনের উচ্চতা নির্ধারণ করা হয়েছে। যে ব্লকে নাগরিক সুবিধা ও ড্রেনেজ নেটওয়ার্ক ভালো, উন্মুক্ত স্থান বেশি, সেই ব্লকের ভবনের উচ্চতা বেশি ধরা হয়েছে। আর যেখানে বিপরীত চিত্র পাওয়া গেছে, সেখানে ভবনের উচ্চতা কম ধরা হয়েছে।

তবে যেসব ভবনের নির্মাণকাজ শেষ হয়ে গেছে বা ভবন নির্মাণের অনুমোদন ইতিমধ্যে নেওয়া হয়ে গেছে বা নতুন ড্যাপ চূড়ান্ত হওয়ার আগে নির্মাণ অনুমোদন নেওয়া হবে সে ক্ষেত্রে উচ্চতার এই বিধিনিষেধ প্রযোজ্য হবে না।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *