নিজস্ব প্রতিবেদক:

সোমবার বিকালে গুলশানের একটি হোটেলে দেশে করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি ও জিন রূপান্তর নিয়ে গবেষণার তথ্য প্রকাশে বলা হয় রাজধানীতে বসবাসকারী ৪৫ শতাংশ মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

গত জুলাই পর্যন্ত অ্যান্টিবডি পরীক্ষায় এসব তথ্য পেয়েছেন গবেষকরা। আইসিডিডিআরবি সিনিয়র বিজ্ঞানী ফেরদৌসি কাদরি বলেন, অ্যান্টিবডি পরীক্ষায় দেখা গেছে রাজধানীতে বসবাসকারী ৪৫ শতাংশ মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের ২৪শতাংশের বয়স ৬০বছরের বেশি।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) ও বেসরকারি আন্তর্জাতিক উদারময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি) যৌথভাবে এই গবেষণা করেছে। এই গবেষণায় আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের দাতা সংস্থা ইউএসএ আইডি এবং বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন।

অনুষ্ঠানে আইইডিসিআর সহকারী প্রফেসর ড. মাহবুবুর রহমান বলেন, যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তাদের ৮২ ভাগের কোনো লক্ষণই ছিল না, ৬ ভাগের লক্ষণ ছিল, ১২ ভাগ প্রিসিম্পটোমেটিক ছিল। ঢাকা সিটিতে ৯.৮ শতাংশ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। বস্তিতে আক্রান্তের হার ৫.৭ ভাগ।

গবেষণার জন্য ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১২৯টি ওয়ার্ডের মধ্য থেকে দৈবচয়ন ভিত্তিতে ২৫টি ওয়ার্ড বেছে নেওয়া হয়। প্রতি ওয়ার্ড থেকে একটি মহল্লা বাছাই করা হয়। প্রতি মহল্লা থেকে ১২০টি খানা জরিপে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এ ছাড়া ৮টি বস্তিকে এ জরিপে যুক্ত করা হয়। ঢাকা শহরের সাধারণ খানার নমুনা সংগ্রহ করা হয় মধ্য এপ্রিল থেকে মধ্য জুলাই পর্যন্ত। আর বস্তির মানুষের নমুনা সংগ্রহ করা হয় মধ্য জুলাই থেকে আগস্টের শেষ পর্যন্ত।

অনুষ্ঠানে গবেষণার ফলাফল উপস্থাপন করেন আইইডিডিআর ও আইসিডিডিআরবির গবেষক ও বিজ্ঞানীরা। এতে সভাপতিত্ব করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। অনুষ্ঠানে অনলাইনে যোগ দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ যাতে না আসে সেজন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। জনগণ সচেতন না হলে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ কষ্টসাধ্য ব্যাপার। যারা ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তাদেরও সতর্ক থাকার পরামর্শ থাকল।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *