নিজস্ব প্রতিবেদক:


অবৈধভাবে করোনাভাইরাসের টিকা সংরক্ষণ ও বিক্রির অভিযোগে রাজধানীর দক্ষিণখান থানা এলাকা থেকে বিজয়কৃষ্ণ তালুকদার নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার রাতে দক্ষিণখানের হাজীপাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে আজ তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বিজয়কৃষ্ণ তালুকদার দাবি করেছেন, তিনি একজন পল্লিচিকিৎসক। দক্ষিণখানের হাজীপাড়ায় ‘দরিদ্র পরিবার সেবা’ নামের একটি ক্লিনিকের মালিকও তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে দক্ষিণখান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুল হক মিয়া ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) রিজিয়া খাতুন এনটিভি অনলাইনকে এসব তথ্য জানান।

পুলিশ আরও জানায়, অভিযানে ক্লিনিক থেকে ২২টি মডার্নার টিকার খালি বাক্স ও একটি টিকা এবং চিকিৎসকের বাসার ফ্রিজ থেকে আরও একটি মডার্নার টিকা উদ্ধার করা হয়েছে। বিজয়কৃষ্ণ তালুকদার টাকার বিনিময়ে ২২ জনকে করোনার টিকা দিয়েছেন। এটা অবৈধ কাজ।

এসআই রিজিয়া খাতুন জানান, প্রায় ১৫ দিন আগে তিনি তথ্য পান, বিজয়কৃষ্ণ তালুকদার এক হাজার করে মডার্নার টিকা বিক্রি করছেন। এরপর সোর্স নিয়োগ করা হয়। তারা টিকা কেনার চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে একজন সোর্স গতকাল টিকা নিতে ক্লিনিকে যান। সেখানে পুলিশের লোকজনও ছদ্মবেশে যায়। কিন্তু বিষয়টি বুঝে ফেলে বিজয়কৃষ্ণ কথা পাল্টে বলেন, আজ নয়, কাল টিকা দেওয়া হবে।

রিজিয়া খাতুন বলেন, ‘তখন আমরা তাকে আটক করি এবং জিজ্ঞাসাবাদ করি। তখন তিনি টাকার বিনিময়ে টিকা বিক্রির কথা স্বীকার করেন।’ তিনি আরও জানান, ক্লিনিক ও বাসায় অভিযান চালিয়ে খালি বাক্স ও টিকা উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাতে এসআই রিজিয়া দাবি করেন, ‘উত্তরার একটি এনজিও থেকে এ টিকা পাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন বিজয়কৃষ্ণ তালুকদার। বিস্তারিত খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

থানার পরিদর্শক আজিজুল হক মিয়া বলেন, বিজয়কৃষ্ণ তালুকদার পল্লিচিকিৎসকের কোনো সনদ দেখাতে পারেননি। এ ব্যাপারে মামলা হয়েছে। ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে আদালত সূত্র জানিয়েছে, দুপুরে বিজয়কৃষ্ণ তালুকদারকে ১০ দিনের রিমান্ডে চেয়ে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। বিচারক আবু সাঈদ আগামী ২৩ আগস্ট রিমান্ড শুনানির জন্য দিন ধার্য করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *