নিজস্ব প্রতিবেদক:
যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে (বালক) তিন কিশোর হত্যার ঘটনায় প্রত্যেক পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ কেন দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে তিনটি শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে বিদ্যমান অনিয়ম ও সমস্যা দূর করতে পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

সোমবার বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান ও বিচারপতি মো. মাহমুদ হাসান তালুকদারের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল জারি করেন।

রুলে স্বরাষ্ট্র সচিব, সমাজকল্যাণ সচিব, সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, যশোরের জেলা প্রশাসক, যশোর পুলিশ সুপার, যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের কর্তৃপক্ষকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সানজিদ সিদ্দিকী।

এর আগে গত সপ্তাহে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে (বালক) তিন কিশোর হত্যার ঘটনায় প্রত্যেক পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে রিট করা হয়।

গত ২০ আগস্ট যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে (বালক) তিন কিশোর হত্যার ঘটনায় প্রত্যেক পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়।

নিহত তিন কিশোরের পরিবারের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সানজিদ সিদ্দিকী এ নোটিশ পাঠান। নোটিশে সংবাদমাধ্যমে উঠে আসা দেশের তিনটি শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে বিদ্যমান অনিয়ম ও সমস্যা দূর করতে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। অনিয়ম ও সমস্যার মধ্যে রয়েছে, ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত শিশু রাখা, খাদ্য সমস্যা ও নিরাপত্তার ঘাটতি এবং শিশুরা অনেক ক্ষেত্রে বুলিংয়ের শিকার হয়।

গত ১৩ আগস্ট শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে তিন কিশোরকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এ সময় ১৫ কিশোরকে পিটিয়ে আহত করা হয়।

নিহতরা হলো- বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার ছোলিবপুর পূর্বপাড়ার নান্নু পরামানিকের ছেলে নাইম হাসান (১৭), খুলনার দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা দক্ষিণপাড়ার রোকা মিয়ার ছেলে পারভেজ হাসান (১৮) ও বগুড়ার শেরপুরের মহিপুর গ্রামের নূরুল ইসলাম নুরুর ছেলে রাসেল ওরফে সুজন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *