শেরপুর প্রতিনিধি:

শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলায় মোটরসাইকেল কিনে না দেওয়ায় মাকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে এক কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত কিশোরের নাম হানিফ(১৪)।

শনিবার সন্ধায় শহরের তাতিহাটি পশ্চিমপাড়া থেকে ঘাতক কিশোরকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, গ্রেফতারকৃত কিশোর গত রোববার তার মা হনুফা বেগমের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দরিয়ে দেয়। পরে পরিবারের লোকেরা আহত হনুফাকে হাসপাতালে এনে ভর্তি করে। চারদিন চিকিৎসার পর শুক্রবার রাতে হাসপাতালে হনুফার মৃত্যু হয়। নিহত হনুফার বাড়ি শেরপুরের চকপাঠক এলাকায়। তার স্বামীর নাম আলী সাদার।

নিহতের ভাই দুলাল জানান, নিহত হুনুফার তিন সন্তানের মধ্যে সবার বড় হানিফ। বেশ কিছুদিন যাবৎ মায়ের কাছে মোটরসাইকেল কিনে দেয়ার বায়না করে আসছিল। কোনভাবেই মাকে রাজি না করাতে পেরে ক্ষিপ্ত হয়ে গত রোববার রাতে মায়ের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় ছেলে হানিফ। অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় হুনুফাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পরে জেলা সদর হাসপাতাল ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি ঘটায় তাকে রাজধানীর শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জন ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছিল। আর সেখানেই শুক্রবার তার মৃত্যু হয়।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *