জেলা প্রতিনিধি,ময়মনসিংহ:

ময়মনসিংহে মামলা প্রত্যাহার না করায় বাদীর দুই পা ভেঙে দিয়েছে আসামিরা।

ঘটনাটি ঘটেছে জেলার তারাকান্দা উপজেলা গালাগাও ইউনিয়নের দর্জিগাতি গ্রামে। এ ঘটনায় মামলা হলেও এখনো কোন আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

মামলার বাদী শফিকুল ইসলাম জানান, আসামি ও তিনি প্রতিবেশী। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় তিনি মাঠে যাচ্ছিলেন। ওই সময় দেশীয় ধারালো অস্ত্র নিয়ে প্রতিবেশী আবদুর রাজ্জাক, আজিজুলসহ সাত-আটজন মিলে তাঁর পথ রোধ করে রড দিয়ে তাঁকে এলোপাতাড়ি পেটায়। একপর্যায়ে তাঁর দুই পা ভেঙে রক্তাক্ত করে ফেলে।

এ সময় আহত হন তাঁর ভাবি পারভীন আক্তার (৪০) ও ভাতিজা খাইরুল ইসলাম (১৮)। পরে খবর পেয়ে স্বজনরা তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এর পর গত বুধবার রাতে তারাকান্দা থানায় আবদুর রাজ্জাকসহ সাতজনকে আসামি করে মামলা করেন শফিকুল ইসলাম। তবে এখনো কোনো আসামি গ্রেপ্তার হয়নি।

বাদীর অভিযোগ, তাঁকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে ২০১৫ সালে তিনি প্রতিবেশী আবদুর রাজ্জাক, ছায়েদুল, আজিজুল, মফিদুলদের বিরুদ্ধে তারাকান্দা থানায় একটি মামলা করেন। ওই মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আসামিরা জামিনে থাকা অবস্থায় মামলা প্রত্যাহারের জন্য বাদী ও তাঁর পরিবারের লোকজনকে নানান ভয়ভীতি ও হুমকি দেয়।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ২১ আগস্ট আসামিরা শফিকুল ইসলামের পুকুরে জোরপূর্বক মাছ ধরার চেষ্টা করে। বাদীপক্ষের বাধায় আসামিরা চলে যায়। ওই দিন বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে শফিকুল ইসলাম ও তাঁর ভাতিজা খাইরুল ইসলাম আসামিদের বাড়ির পাশ দিয়ে মাঠে যাচ্ছিলেন। এ সময় আসামিরা শফিকুল ইসলামের ওপর হামলা চালায়। তারা রড দিয়ে পিটিয়ে দুই পা ভেঙে দেয়। এ সময় তাঁর ভাবি ও ভাতিজা আহত হন। আসামি গ্রেপ্তার না হওয়ায় পরিবার নিয়ে নিরাপত্তহীনতায় আছেন জানান শফিকুল।

তারাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আসামিদের গ্রেপ্তারে জোর চেষ্টা অব্যাহত আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *