মোশারফ হোসেন,মানিকগঞ্জ:

মানিকগঞ্জে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলার ৮ বছর পর প্রধান অভিযুক্ত মো. সাদ্দাম মিয়া (৩০) নামের এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। এ ছাড়াও নির্দোষ প্রমাণিত হওয়ায় সম্ভু সরকার ও তপু পাল নামক দুই ব্যক্তিকে খালাস দেন আদালত।

বুধবার বিকালে মানিকগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আলী এই দণ্ডাদেশ প্রদান করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত সাদ্দাম মিয়া মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার গোবর নার্চি গ্রামের আহম্মদ আলীর ছেলে।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, ২০১২ সালের ৮ নভেম্বর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার গোলড়া এলাকার ছানোয়ার হোসেনের মেয়ে কলেজ ছাত্রী তুহিন সুলতানা আক্তার মীমকে ধর্ষণ করে আসামী সাদ্দাম মিয়া। ধর্ষণের পর মীমকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং মীমের ঘরে থাকা ৭৫ হাজার টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে পালিয়ে যায় সাদ্দাম।

এ ঘটনায় মীমের বাবা ছানোয়ার হোসেন বাদি হয়ে তৎকালিন সময়ে সাটুরিয়া থানায় মামলা করেন। পরের বছর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশের তদন্ত কর্মকর্তা। মামলায় ১৮ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামী সাদ্দামকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং নির্দোষ প্রমাণিত হওয়ায় সম্ভু সরকার ও তপু পালকে খালাস দেন আদালত।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *