অনলাইন ডেস্ক:

সারা পৃথিবীর মানুষ মহামারি করোনাভাইরাসের কবলে পড়ে চরম সংকটে নিপতিত। এমন পরিস্থিতিতে ভারতের পশ্চিম উত্তরপ্রদেশের বাঘপত এলাকার একাধিক শ্মশান ও সমাধিস্থলে গিয়ে মৃতদের শরীর থেকে পোশাক চুরি করার অভিযোগে ৭ জন চোরকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গতকাল রোববার স্থানীয় পুলিশ এই ঘটনার কথা প্রকাশ্যে এনেছে। করোনার জেরে দেশে মৃতদের সংখ্যা নির্ধারণের সময় এই ঘটনার কথা জানাজানি হয়। লাশের সংখ্যা গুণতে গিয়ে দেখা যায়, সেগুলির শরীরে কোনও পোশাক নেই।

মৃত ব্যক্তির পরিহিত পোশাক, শাড়ি-অন্য পোশাক, গয়না এমনকী মরদেহ ঢাকা সাদা কাপড়ও চুরি করতো তারা। তারপর সেসব কাপড়ে একটি ব্র্যান্ডের স্টিকার লাগিয়ে পৌঁছে দিত দোকানে দোকানে। প্রতিদিনের সরবরাহ করা কাপড়ের হিসাবে টাকা দিত দোকানিরা। ভারতের উত্তরপ্রদেশে এক দশক ধরে এভাবেই রমরমা ব্যবসা করে আসছিল একটি চোর চক্র। ভারতে নভেল করোনাভাইরাসের প্রকোপে নিয়মিত মৃত্যুর সুযোগ নিয়ে ফুলে-ফেঁপে উঠেছিল চক্রের ব্যবসা। অবশেষে গতকাল রোববার ওই চক্রের সাতজনকে আটক করছে পুলিশ।

সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, আটক ওই দলটির কাছ থেকে ৫২০ পিস বিছানার চাদর, ১২৭টি কুর্তা এবং ৫২ পিস সাদা শাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া আরও নানা রকমের জামা-কাপড় ছিল ওই চক্রের কাছে। এসব জামা-কাপড় গত কয়েক দিনে মৃতদের শরীর থেকে চুরি করা হয়েছিল।

পুলিশ জানিয়েছে, আটক করা ব্যক্তিদের মধ্যে তিনজন একই পরিবারের সদস্য। ১০ বছর ধরে এই কাজের সঙ্গে যুক্ত তারা। স্থানীয় কিছু ব্যবসায়ীর সঙ্গে চুক্তি রয়েছে তাদের। প্রতিদিন জামা-কাপড় দেওয়ার বিনিময়ে ৩০০ টাকা করে পেত তারা।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, করোনা পরিস্থিতিতে ওই সাতজনের বিরুদ্ধে চুরি মামলার সঙ্গে মহামারি আইনেও মামলা করা হয়েছে।

সূত্র : এনডিটিভি, হিন্দুস্তান টাইমস

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *