আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিনের বণ্টন নিয়ে ঐতিহাসিক এক চুক্তিতে সম্মত হয়েছে ১৫৬টি দেশ। এ চুক্তির ফলে কোনো ভ্যাকসিন কার্যকরি প্রমাণিত হলে তা কম সময়ের মধ্যে এবং সাম্যতার ভিত্তিতে বিশ্বের দেশগুলোতে বিতরণ করা হবে।

এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিন আবিষ্কারে যেসব রাষ্ট্র এগিয়ে আছে তার সবগুলোই শক্তিশালী অর্থনীতির দেশ। ফলে এই ভ্যাকসিন বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোর কাছে পৌঁছাতে তুলনামূলকভাবে অনেক দেরি হবে এমন আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।

তবে নতুন চুক্তি বলছে, কোনো কার্যকরী ভ্যাকসিন আবিষ্কার হওয়া মাত্রই তার স্বাক্ষরকারী প্রতিটি রাষ্ট্রে পাঠানো হবে। বেছে নেওয়া হবে প্রতিটি দেশের তিন শতাংশ নাগরিককে। যেসব দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা দুর্বল এবং সম্মুখযোদ্ধারা ঝুঁকিতে রয়েছেন সেসব দেশে প্রথম দিকেই সুরক্ষা নিশ্চিত করবে এ চুক্তি।

এ খবর দিয়েছে বৃটিশ গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান।

ধনী দেশগুলোর সঙ্গে যেনো দরিদ্র ও উন্নয়নশীল রাষ্ট্রগুলোও ভ্যাকসিন পায় সেটি নিশ্চিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান মিলে কোভ্যাক্স কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রকল্প গ্রহণ করেছে।

প্রকল্পের উদ্দেশ্য হচ্ছে, আগামী বছরের মধ্যেই বিশ্বের ২০০ কোটি মানুষের মধ্যে করোনার ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়া। এই বিতরণ হবে সাম্যতার ভিত্তিতে অংশগ্রহণকারী সবদেশে। এখন পর্যন্ত বিভিন্ন সরকার, ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী কোম্পানি ও সংস্থা এই প্রকল্পে ১৪০ কোটি ডলার প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *