সিএনএস ডেস্ক:

দ্বীপাঞ্চল ভোলার ৭ উপজেলায় মা ইলিশ শিকার নিষেধাজ্ঞার ২২ দিনের কারনে ১ লাখ ২০ হাজার জেলে পরিবারের জন্য ২০ কেজি করে চাল বিতরণ চলছে। গত ১৪ অক্টোবর ইলিশ সুরক্ষায় অভিযানের প্রথম দিন থেকে এসব চাল বিতরণ শুরু হয়।

এর জন্য জেলায় মোট বরাদ্দ এসেছে ২ হাজার ৪০০ মে:টন চাল। যা আগামী ৩০ তারিখের মধ্যে বিতরণ সম্পন্ন করার কথা থাকলেও ২৫ তারিখের মধ্যে শেষ হবে বলে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এস এম আজাহারুল ইসলাম আজ বাসস’কে জানিয়েছেন।

তিনি জানান, জেলার মোট চালপ্রাপ্ত নিবন্ধিত জেলে পরিবারের মধ্যে সদর উপজেলায় ১৭ হাজার ৬’শ ৫৬, দৌলতখানে ১৯ হাজার ৫০০, বোরহানউদ্দিনে ৭৭ হাজার ৪৪, লালমোহনে ১৫ হাজার, তজুমদ্দিনে ১৬ হাজার ৭’শ, চরফ্যাসনে ২৪ হাজার ও মনপুরায় ১০ হাজার ২’শ পরিবার রয়েছে। এছাড়া জেলায় মোট নিবন্ধিত জেলে রয়েছে ১ লাখ ২৪ হাজার।

মৎস্য কর্মকর্তা আরো বলেন, ইলিশ আমাদের জাতীয় সম্পদ। একে রক্ষা করা আমাদের প্রত্যেকের দায়িত্ব। ইতোমধ্যে সরকারের ব্যাপক প্রচার প্রচারণার ফলে অধিকাংশ জেলেরাই পূর্বের চেয়ে অনেক সচেতন হয়েছে। আইন মান্য করে ইলিশ শিকার থেকে নিজেদের বিরত রাখছেন। তারপরেও অসাধু কেউ কেউ ইলিশ ধরার চেষ্টা করছে। তাদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগি ইউনিয়নের মেঘনা পাড়ের বাসিন্দা জেলে আজাহার আলী, মোকতার হোসেন ও জাকির হোসেন বলেন, গতকাল তারা সরকোরের বরাদ্দকৃত চাল পেয়েছেন। এতে তারা খুশি। প্রজনন মৌসুমে সরকারের এমন কার্যক্রমের ফলে নদী ও সাগরে ইলিশের প্রাচুর্যতা অনেক বেড়েছে।

মৎস্য অফিস জানায়, এর্যন্ত ইলিশ রক্ষায় অভিযানের প্রথম দিন থেকে রোববার সকাল পর্যন্ত জেলায় ৬৫টি অভিযান ও ৪৫টি মোবাইল কোর্টেও মাধ্যমে ১১৬ জন জেলের জেল জরিমানা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৫০ জনকে ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা ও ৬৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া একইসময়ে অবৈধ কারেন্ট জাল উদ্ধার হয়েছে প্রায় ১ লাখ মিটার। যার বাজার মূল্য ২৮ লাখ টাকা। একইসাথে ইলিশ জব্দ করা হয়েছে ৩২০ কেজি। জাল পুড়িয়ে বিনষ্ট ও ইলিশ অসহায়দের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসম নির্বিগ্ন করার জন্য সরকার ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ইলিশ শিকার, পরিবহন, বিক্রি, প্রদর্শন ও মজুদ নিষিদ্ধ করেছে। তাই এ সময়ে জেলেদের জন্য বিশেষ এ চাল বরাদ্দ করে সরকার।

সূত্র:- বাসস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *