ভাঙ্গা(ফরিদপুর)প্রতিনিধি:

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার ভাঙ্গা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর পাশে অবস্থিত পদ্মা জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার নামে একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে অভিযান চালিয়েছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত।

বৃহস্পতিবার বিকেলে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সহকারী কমিশনার(ভুমি) মোহাম্মদ আল আমীনের নেতৃত্বে র‌্যাবের একটি দল হাসপাতালটিতে অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানকালে কতৃপক্ষ হাসপাতালটির কোন বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেননি এবং ক্লিনিকটিতে চিকৎসা সেবায় নানা অনিয়মও ধরা পড়ে। বিভিন্ন অনিয়মের কারণে হাসপাতালটি থেকে ৩ জনকে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হল-হাসপাতালটিতে কর্মরত ভূয়া ডাক্তার মামুনুর রশিদ(৩৫),হাসপাতালটির পরিচালক মজিবর রহমান খোকন(৫৫)এবং
হাসপাতালটিতে রোগী সরবরাহকারী ওসমান মুন্সী(৫২)। এদের বাড়ি উপজেলার হোগলাডাঙ্গি সদরদী এলাকায়।

পরে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অবৈধভাবেপরিচালনা করার দায়ে হাসপাতালটির পরিচালক মজিবর রহমান খোকনকে ৩ মাস,ভুয়া চিকিৎসক মামুনুর রশিদকে ৬ মাস এবং হাসপাতালে রোগী সরবরাহকারী ওসমান মুন্সীকে ২ মাস কারাদন্ড প্রদান করা হয়।এবং হাসপাতালটি সীলগালা করে দেয় ভাম্যমান আদালত।

জানা গেছে,গত ১ সপ্তাহ পূর্বে উপজেলার আতাদী গ্রামের জনৈক রোগী এপেন্ডিক্স নিয়ে হাসপাতালটিতে চিকিৎসা নিতে ভর্তি হন। ওই রোগীর স্বজনদের অভিযোগ কোন সার্টিফিকেট ছাড়াই কর্তৃপক্ষের যোগসাজসে ভূয়া চিকিৎসক মামুনুর রশিদ তাকে অপারেশন করেন।

এ সময় ভুল চিকিৎসায় রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন হলে তাকে ফরিদপুরে পাঠানো হয়। রোগীর অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি দল হাসপাতালটিতে অভিযান চালায়।

পরে ভ্রাম্যমান আদালতে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সহকারী কমিশনার(ভূমি)মোহাম্মদ আল আমীন এ সাজা প্রদান করেন।এ ব্যাপারে সহকারী
কমিশনার (ভূমি) বলেন, দীর্ঘ্যদিন হাসপাতালটিতে অবৈধভাবে চিকিৎসা কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে। নানা অনিয়ম এবং মানুষের জীবন নিয়ে চিকিৎসার নামে অবৈধ কাজ করার দায়ে প্রতিষ্ঠানটি বন্ধের পাশাপাশি এদের কারাদন্ড দেওয়া হয়।

মাহমুদুর রহমান(তুরান)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *