আন্তর্জাতিক ডেস্ক:


বিশ্বের সবচেয়ে বড় ঠোঁট বানানোর নেশায় পড়েছিলেন বুলগেরিয়ার তরুণী অ্যান্ড্রিয়া ইভানোভা। সেই নেশায় একেবারে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন তিনি। একবার দুবার নয় ইভানোভা মোট ২০ বার অস্ত্রোপচারের মধ্যে দিয়ে গেছেন। এমনকি তার ঠোঁটে প্রয়োগ করা হয়েছে এসিডও।

ইভানোভার এই শখ ছাড়িয়েছে স্বাভাবিক যেকোনো শখকেই। তার এই শখকে অনেকেই পাগলামি বলে অভিহিত করছেন। তবে এই শখের ক্ষেত্রে কোনও কিছুই তাকে বিচলিত করতে পারেনি।

ইভানোভা জানান, বিশ্বের সবচেয়ে বড় ঠোঁট বানাতে গিয়ে মোট ২০ বার অস্ত্রোপচার করাতে হয়েছে তাকে। নিজেকে তিনি ‘বার্বি’ পুতুলের মতো সাজাতে চান। এই তাগিদে থেকেই ঠোঁটে একের পর এক অস্ত্রোপচার করিয়ে চলেছেন তিনি। এসব অস্ত্রোপচারের জন্য এখন পর্যন্ত কয়েক হাজার পাউন্ডও খরচ করেছেন তিনি।

ইভানোভা বলেন, ‘তাঁর ঠোঁটে ১৭ বার হায়লুরোনিক অ্যাসিড প্রয়োগ করা হয়েছে। যার ফলে ঠোঁট স্বাভাবিক অবস্থার তুলনায় চার গুণ বড় হয়ে গেছে।’

ইভানোভা আরও জানান, সর্বশেষ অস্ত্রোপচারের পর চিকিৎসকরা জানিয়েছেন এটাই যথেষ্ট। তবে নিজের ঠোঁট নিয়ে এখনো সন্তুষ্ট নন তিনি। ঠোঁট আরও বড় বানানোর জন্য আরও দু’টি অস্ত্রোপচার করাতে চান তিনি।

ইভানোভার এই অদ্ভুত শখ দেখে অনেকেই শঙ্কা প্রকাশ করেছেন তার স্বাস্থ্য নিয়ে। নিজের এই ঠোঁট নিয়ে ট্রোলেরও শিকার হয়েছে। তবে সব সমালোচনা বাদ দিয়ে তার একটাই লক্ষ্য নিজের ঠোঁটকে আরও বড় কিভাবে বানানো যায়। সূত্র আনন্দবাজার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *