স্পোর্টস ডেস্ক:
করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘদিন মাঠের বাইরে টিম ইন্ডিয়ার অধিনায়ক বিরাট কোহলি। বাড়িতেই শরীরচর্চা করে ফিট থাকতে হচ্ছে তাকে। দলের সঙ্গে কবে অনুশীলনে নামতে পারবেন, এখনও ঠিক নেই।

প্রায় পাঁচ মাস বাইশ গজে ব্যাট হাতে খেলতে না পারার হতাশাও রয়েছে তার মধ্যে। এরই মধ্যে ভারত অধিনায়কের বিরুদ্ধে সোজা আদালতের গিয়ে মামলা ঠুকে দিলেন এক আইনজীবী। মাদ্রাজ হাইকোর্টে মামলা করা হলো তার নামে। এমনকি বিরাট কোহলিকে গ্রেপ্তারের দাবিও উঠে গেলো।

লকডাউনের মধ্যেই কী এমন ‘অপরাধ’ করে বসলেন কোহলি? আসলে গ্যাম্বলিং তথা জুয়ার বিজ্ঞাপনে দেখা গেছে টিম ইন্ডিয়ার অধিনায়ককে। ঠিক এখানেই আপত্তি তুলেছেন চেন্নাইয়ের এক আইনজীবী।

সেই আইনজীবির দাবি, এ সমস্ত বিজ্ঞাপন দেখে জুয়ার প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছে যুব প্রজন্ম। তার ওপর এ ধরনের বিজ্ঞাপনে বিরাটের মতো ক্রিকেটার কিংবা তামান্নার মতো অভিনেত্রীকে দেখা যাচ্ছে। ফলে জুয়ার প্রতি আকর্ষণ দ্বিগুণ হচ্ছে তরুণ-তরুণীদের।

অনেকেরই মনে হচ্ছে প্রিয় তারকারা এর প্রচার করছেন মানে, বিষয়টি খারাপ হতেই পারে না। তাছাড়া এসব গেমের জন্য বাড়ির বাইরে বেরনোরও প্রয়োজন হচ্ছে না। পুরোটাই অনলাইনে। তাই আইনজীবীর আবেদন, যত দ্রুত সম্ভব জুয়ার সমস্ত অ্যাপ যেন নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয় ভারত থেকে।

এখানেই থামেননি তিনি। একই সঙ্গে আদালতকে অনুরোধ জানিয়েছেন, জুয়া খেলার প্রচার করার অভিযোগে কোহলি এবং অভিনেত্রী তামান্নাকে গ্রেপ্তার করা উচিত।

বিষয়টি যে কতখানি ক্ষতিকর, তার উদাহরণও তুলে ধরেন সেই আইনজীবী। জানালেন, এই অনলাইন জুয়া খেলার জন্য এক তরুণ প্রচুর টাকা ধার নিয়েছিল; কিন্তু শেষমেশ তা শোধ করতে না পারায় আত্মঘাতি হয়। তাই তিনি চান, আদালতে এর উপর নিষেধাজ্ঞা জারির সিদ্ধান্তই নিক।

মামলার শুনানি আগামী মঙ্গলবার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *