অনলাইন ডেস্ক:

যুক্তরাষ্ট্রের প্রখ্যাত হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক দাবি করেছেন, বিমানযাত্রার চেয়ে মুদির দোকানে কেনাকাটা করা বা রেস্তোরাঁয় খেতে যাওয়ার ফলে কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেক বেশি।

এ সপ্তাহে বিশ্ববিদ্যালয়ের টি এইচ চ্যান স্কুল অব পাবলিক হেলথ-এর গবেষকদের প্রকাশিত ‘অ্যাভিয়েশন পাবলিক হেলথ ইনিশিয়েটিভ’ নামের একটি গবেষণাপত্রে এ কথা জানানো হয়।

গবেষণাপত্রটির পর্যবেক্ষণে বলা হয়, মহামারিকালে মুদি দোকানে গিয়ে জিনিসপত্র কেনাকাটা করা কিংবা রেস্তোরাঁয় খেতে যাওয়া খুবই বিপদের ব্যাপার। সেই তুলনায় আকাশপথে ভ্রমণে কোভিড-১৯ সংক্রমণের আশঙ্কা বরং কম।

এর কারণ হিসেবে গবেষকরা জানান, বিমানযাত্রীরা বেশ কিছু সুরক্ষাবিধি মেনে চললে সংক্রমণের ঝুঁকি কমানো সম্ভব।

এক্ষেত্রে সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে বিমানযাত্রার নির্দেশিকায় বারবার হাত ধোয়া এবং সারাক্ষণ মাস্ক পরে থাকা-সহ বিমানে যেন সব সময় ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা থাকে, তা নিশ্চিত করার পরামর্শ দেন তারা। এ ছাড়া, বিমানের ভেতরে ও বিমানবন্দরে পর্যাপ্ত বাতাস চলাচল নিশ্চিত করার ওপর জোর দেন।

অন্যদিকে, বিমান নিয়মিত পরিষ্কার রাখা এবং জীবাণুমুক্ত করার দিকেও জোর দেওয়ার পরামর্শ তাদের। তারা বলেন, এইসব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললেই বিমানযাত্রায় করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

গবেষণাপত্রটিতে আরও বলা হয়, ‘বিমানযাত্রার সময় সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে কী কী বিষয়ে সচেতন থাকা উচিত, তা নিয়ে বিমানসংস্থা এবং বিমানবন্দরগুলি প্রচার চালাচ্ছে। এর মধ্যে বুকিং বা চেক-ইনের সময় অথবা উড়ানে জনস্বাস্থ্যের সুরক্ষার দিকগুলি তুলে ধরা হয়েছে। বিমানকর্মীদের এ বিষয়ে নিয়মিত ট্রেনিংও দেওয়া হয়। কোনো যাত্রী কোভিড-সন্দেহভাজন হলে তাকে চিহ্নিত করা বা আইসোলেট করাও সেই ট্রেনিংয়ের অঙ্গ।’

সূত্র: আনন্দবাজার / টিবিএস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *