অনলাইন ডেস্ক:

করোনাভাইরাস মহামারিতে লণ্ডভণ্ড ভারত। কয়েক দিন ধরে দেশটিতে দৈনিক চার লাখের কাছাকাছি রোগী শনাক্ত হচ্ছে। মৃত্যু হচ্ছে প্রতিদিন তিন হাজারেরও বেশি মানুষের। হাসপাতালগুলোতে ঠাঁই নেই। এমনকি শ্মশানেও জায়গা হচ্ছে না। এ পরিস্থিতিতে প্রতিবেশী দেশটির পাশে মানবিক সাহায্য নিয়ে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ।

করোনা মোকাবেলায় ভারতে জরুরি ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে ঢাকা। এরই অংশ হিসেবে প্রথম দফায় আজ বুধবার (৫ মে) ১০ হাজার ইনজেক্টেবল অ্যান্টি-ভাইরাল রেমডিসিভির পাঠানো হচ্ছে।

দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, পর্যায়ক্রমে অন্যান্য জরুরি ওষুধ ও চিকিৎসা সরঞ্জাম পাঠানো হবে এবং প্রয়োজনে দিল্লিকে আরো সহায়তা দিতে আগ্রহী ঢাকা। ভারত যে চাহিদাপত্র দিয়েছে, তা নিয়েও কাজ করছে ঢাকা।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইনজেক্টেবল অ্যান্টি-ভাইরালের পাশাপাশি ওরাল অ্যান্টি-ভাইরাল, ৩০ হাজার পিপিই কিটস এবং কয়েক হাজার জিঙ্ক, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-সি এবং প্রয়োজনীয় ট্যাবলেটও পাঠানো হবে।

গতকাল মঙ্গলবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেন, ভারতের যেসব প্রদেশ থেকে সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে, আমরা তাদের কেন্দ্রীয় সরকারের অনুমতি নিতে বলেছি। অনুমতি পেলে সহযোগিতা করব।

তিনি বলেন, করোনা মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভারতকে সহযোগিতায় জরুরি ওষুধ ও চিকিৎসা সরঞ্জাম দিতে চায় বাংলাদেশ। আমরা সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকেও ফাইল রেডি করে রাখা হয়েছে। করোনা সংক্রমণের বিস্তারে ভারতে মানুষের মৃত্যুতে বাংলাদেশ সরকার এরই মধ্যে গভীর দুঃখ ও সমবেদনা প্রকাশ করেছে।

সংকটময় এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ তার ঘনিষ্ঠ প্রতিবেশী ভারতের পাশে আছে উল্লেখ করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, মানুষের জীবন বাঁচানোর সম্ভাব্য সব উপায়ে সহায়তা দিতে বাংলাদেশ প্রস্তুত রয়েছে। জরুরি ওষুধ পাঠানোর ঘোষণায় ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশন বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানিয়ে টুইটে বলেছে, ‘বাংলাদেশ-ভারত একসঙ্গে এ মহামারি জয় করবে’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *