নিজস্ব প্রতিবেদক :

বগুড়ার শিবগঞ্জে মেহেদী হাসান নামে ১৬ বছর বয়সী এক বাউল শিল্পীর মাথা ন্যাড়া করে দেওয়ার অভিযোগে তিন জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে মামলা করার পর পরই পুলিশ জুড়ি মাঝপাড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তার তিন জন হলেন, জুড়ি মাঝপাড়া গ্রামের মাতব্বর ও গুজিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক মেজবাউল ইসলাম (৫২), একই গ্রামের শফিউল ইসলাম খোকন (৫৫) ও তারেক রহমান (২০)।

বাউল শিল্পী মেহেদী হাসান শিবগঞ্জ উপজেলার জুড়ি মাঝপাড়া গ্রামের বেল্লাল হোসেনের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আর্থিক অনটনের কারণে মেহেদী ৬ষ্ঠ শ্রেণীর পর আর পড়াশুনা করতে পারেনি। মেহেদী তার দাদা আলম মণ্ডলের বাড়িতে থাকেন। গত কয়েক বছর আগে পাশের ধাওয়াগীর গ্রামের মতিন বাউলের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। এরপর মেহেদী তার সঙ্গে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বাউল গান গাওয়া শুরু করেন। গান গেয়ে সে টাকা উপার্জন করে। মেহেদী হাসান সাদা লুঙ্গি, সাদা ফতুয়া ও সাদা গামছা ব্যবহার করে। পাশাপাশি মাথার চুল বড় রাখে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা মেহেদীর পরনের পোশাক এবং মাথার চুল নিয়ে বিভিন্ন সময় অশালীন মন্তব্য করে আসছিলেন। এসবের প্রতিবাদ করলে গ্রেপ্তার তিন জনসহ আরও ৩-৪ জন গত ১৮ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে আলম মণ্ডলের বাড়িতে যান। তারা মেহেদীকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে জোরপূর্বক মেশিন দিয়ে তার মাথা ন্যাড়া করে দেন। তারা মেহেদীকে বলেন, বাউল গান ছেড়ে দিতে হবে এবং মাথার চুল আবার বড় করলে গ্রাম ছাড়া করা হবে। এ ঘটনার পর ৫ জনের নামে মেহেদী হাসান বাদী হয়ে মামলা দায়ের করে।

শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সিরাজুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় তিন জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আরও দুইজন পলাতক রয়েছেন। তাদেরকেও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *