শাহজালাল ভূঞা,ফেনী:

জেলার ফুলগাজী উপজেলায় ভারতীয় পাহাড়ি ঢলের পানির চাপে দুই গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে জনজীবন বিপর্যস্ত হওয়ার পাশাপাশি গ্রামের রোপা আমন ও শীতকালীন সবজি পানির নিচে তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে পুরো অঞ্চলের সব পুকুরের মাছ।

স্থানীয়রা জানায়, শনিবার রাতে ফুলগাজী সদর ইউনিয়নের উত্তর দৌলতপুর মুহুরী নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে ৫০-৬০ ফুট ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছে। একইসাথে উত্তর দৌলতপুরে কহুয়া নদীর বাঁধের ভেঙে যায়। ফলে ভাঙ্গন অংশ দিয়ে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানি ঢুকে উত্তর দৌলতপুর ও দক্ষিণ দৌলতপুর গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

এছাড়াও  কৃষকের প্রায় কয়েক হাজার রোপা আমনের খেত পানিতে ডুবে রয়েছে। কৃষকেরা পানিতে ডুবে থাকা ফসল নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুর ইসলাম এলাকার লোকজন নিয়ে ভাঙ্গন স্থানের গর্ত মেরামতের চেষ্টা করছেন।

জানা গেছে, এর আগে জুলাই মাসে ৭-৮টি স্থানে ভাঙ্গন সৃষ্টি হয়েছিল। তখন ২০টিরও বেশি গ্রাম প্লাবিত হয়েছিল।

ফুলগাজী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোমিনুল ইসলাম জানান, উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে ৬ হাজার ২শ হেক্টর জমির রোপা আমন ও ৪০ হেক্টর শীতকালীন সবজির খেত আবাদ হয়েছে। সদর ইউনিয়নের ঘনিয়মোড়া ব্লকে ৪২০ হেক্টর রোপা আমন হয়েছে। এর মধ্যে ১শ ৫ হেক্টর রোপা পানিতে ডুবে আছে। ১৩.৫ হেক্টরের মধ্যে ৬ হেক্টর সবজি পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে।

ফেনীর পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আক্তার হোসেন আজ রবিবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বাঁধে ভাঙনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাত থেকেই পানির অবস্থা ৭০ সেন্টিমিটারে উপরে ডেঞ্জার লেবেলে রয়েছে। আর কোন বাঁধে যাতে না ভাঙ্গে সেজন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সাধারণ মানুষ সম্মিলিতভাবে চেষ্টা করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *