শাহজালাল ভূঞা,ফেনী:

ফেনী পৌরসভার বনানী পাড়ায় সেলুন দোকানে আটকে ১০ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে মানিক চন্দ্র দাস (৫৫) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যায় মানিক চন্দ্র দাসকে তার সেলুনের দোকান থেকে গ্রেপ্তার করে ফেনী মডেল থানার পুলিশ।

এর আগে বিকালে শিশুটির মা বাদী হয়ে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।অভিযক্ত মানিক চন্দ্র ফেনী সদর উপজেলার কালিদহ ইউনিয়নের পূর্ব সিলোনিয়ার সুরামণি দাসের ছেলে।

আজ মঙ্গলবার আসামিকে আদালতে প্রেরণ করা হবে ও নির্যাতিতা শিশুটির জবানবন্দি গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ফেনী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ওমর হায়দার।

পুলিশ ও নির্যাতিতার পরিবার সূত্র জানায়, মানিক দাস ও শিশুটির পরিবার দীর্ঘদিন স্থানীয় আরিফ হোসেন মোল্লার ভাড়া বাসায় থাকে।

সেলুন দোকানি মানিকের স্ত্রী অসুস্থ থাকায় ১৫ অক্টোবর দুপুরে ওই শিশুটিকে ভাত নিয়ে দোকানে পাঠায়। এসময় তার সঙ্গে ৮ বছর বয়সী তার ছোট বোনও ছিল। দুই বোন দোকানে গেলে কৌশলে মানিক দাস ছোট বোনকে সিঙ্গারা আনার জন্য বাইরে পাঠায়। এসময় বড় বোনকে রেখে দোকান আটকে দেয়। তার মা-বাবাকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে চোখ বেধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। কিছুক্ষন পর ছোট বোন ফিরে এসে দোকান বন্ধ দেখে দরজায় ধাক্কা দেয়। দোকান খোলার পর বোনকে নগ্ন অবস্থায় দেখতে পায়। ঘটনার পর বাসায় ফিরে মা-বাবাকে জানালে স্থানীয়ভাবে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে।

নির্যাতিতা শিশুটি জানায়, মানিক দাস ঘটনাটি জানাজানি করলে তার মা-বাবাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

ফেনী মডেল থানার ওসি (তদন্ত) ওমর হায়দার জানান, ঘটনাটি জানামাত্রই পুলিশ অভিযুক্ত মানিক দাসকে রবিবার বাসা থেকে আটক করে নিয়ে আসে। সোমবার ফেনী জেনারেল হাসপাতালে শারিরীক পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। ডিএনএ পরীক্ষার জন্য মানিক দাসকে হাসপাতালে নেয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *