ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজমুল গ্রেপ্তার

ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম খন্দকার ওরফে লেবিকে (৬১) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আজ শুক্রবার বেলা পৌনে একটার দিকে শহরের চরকমলাপুর এলাকায় নিজের কার্যালয় থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে কোতোয়ালি থানার পুলিশ।

ফরিদপুরের সন্ত্রাসী দুই ভাই সাজ্জাদ হোসেন বরকত (৪৭) ও ইমতিয়াজ হাসান ওরফে রুবেলের দেওয়া জবানবন্দিতে নাজমুলের নাম একাধিকবার এসেছে। তাঁরা দুই ভাই সাবেক মন্ত্রী ও সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনের ঘনিষ্ঠ। এই ঘনিষ্ঠতার সুযোগ নিয়ে তাঁরা চাঁদাবাজি, জমি দখল ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে দুই হাজার কোটি টাকার সম্পদের মালিক হয়েছেন। দুই ভাই তাঁদের জবানবন্দিতে নাজমুল ও অন্যদের সঙ্গে মিলে তাঁরা কীভাবে ফরিদপুরে অপকর্ম করতেন, তার বিবরণ দিয়েছেন। পুলিশ ইতিমধ্যে বরকতদের একাধিক সহযোগী ও পৃষ্ঠপোষককে গ্রেপ্তার করেছে। এই তালিকায় সর্বশেষ সংযোজন হলেন ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম খন্দকার ওরফে লেবি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোরশেদ আলমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ নাজমুল ইসলামকে তাঁর কার্যালয় থেকে গ্রেপ্তার করে। পরে হাতকড়া পরিয়ে তাঁকে চেম্বার থেকে বের করে পুলিশের গাড়িতে তোলা হয়। নাজমুল ইসলাম খন্দকর শহরের চরকমলাপুর মহল্লার বাসিন্দা মৃত খন্দকার আমিনুর রহমান ওরফে মজনু খন্দকারের ছেলে। পুলিশ জানায়, মানি লন্ডারিং মামলায় সিআইডির চাহিদা অনুযায়ী নাজমুল হাসানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *