নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:

প্রেমিকার করা ধর্ষণ মামলায় নিজ বিয়ের গায়ে হলুদ অনুষ্ঠান থেকে প্রেমিককে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) রাতে সদর উপজেলার ফতুল্লা থানার পশ্চিম দেওভোগ নাগবাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) পুলিশ ধর্ষণ মামলার আসামি প্রেমিক ইসতিয়াককে নারায়ণগঞ্জ আদালতে পাঠালে শুনানি শেষে বিকালে আদালত তাকে কারাগারে প্রেরণ করে।

ইসতিয়াক আহমেদ নাগবাড়ি এলাকার মিজানুর রহমানের ছেলে। মামলার বাদী ও ইসতিয়াক আহমেদের প্রেমিকা পার্শ্ববর্তী বাবুরাইল তাঁতীপাড়া এলাকার বাসিন্দা।

পুলিশ ও মামলার বিবরনি থেকে জানা যায়, গত চার বছর আগে ইসতিয়াকের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর বিভিন্ন সময় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ইসতিয়াক তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করতে বাধ্য করে। বিয়ের আশ্বাস ও প্রলোভনের এক পর্যায়ে নাগবাড়ি মন্দির সংলগ্ন জিকু মিয়ার বাড়ির তিন তলায় ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে সেখানে তাকে ধর্ষণ করতে থাকে। সর্বশেষ ২০১৯ সালের ২৫ ডিসেম্বরও ওই ফ্ল্যাটে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে ইসতিয়াক। এরপর থেকে বিয়ের ব্যাপারে কথা বললে ইসতিয়াক নানাভাবে টালবাহানা শুরু করে এবং বিয়ে না করার পাঁয়তারা করতে থাকে।

গত ১৪ অক্টোবর সন্ধ্যায়ও তাকে বিয়ে করার কথা বলে বিয়ে করেনি। উল্টো জানিয়ে দেয় সে বাবা মায়ের পছন্দে অন্যত্র বিয়ে করবে এবং তাকে যেন বিরক্ত না করে সেজন্য গালাগাল করেন ইসতিয়াক। পরে ওই তরুণী জানতে পারেন ইসতিয়াক গোপনে বিয়ে করছে। বিষয়টি তিনি তার অভিভাবকদের জানিয়ে থানায় অভিযোগ করেন।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন জানান, তরুণীর অভিযোগের ব্যাপারে প্রাথমিক তদন্তে সত্যতা পেয়ে ধর্ষককে তার গায়ে হলুদ  অনুষ্ঠান থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *