নিজস্ব প্রতিবেদক:

মহামারী করোনাভাইরাসের কারনে চলতি বছর পাঠ‌্যবই উৎসব না হলেও সময়মতো নতুন বইয়ের ঘ্রাণ পাবে শিক্ষার্থীরা। ১ জানুয়ারি শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিতে ইতোমধ‌্যেই পৌঁছে গেছে প্রাথমিকের নতুন বই দেশের ১৬২ উপজেলায়।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক এ এম মনছুরুল আলম বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেন।

মনছুরুল আলম বলেন, অক্টোবরের মাঝামাঝি সময় থেকে পাঠ্যবই উপজেলা পর্যায়ে পাঠানো শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে ১৬২টি উপজেলায় প্রাথমিকের এক কোটি ৬২ লাখ বই চলে গেছে। বছরের ১ম দিনে যাতে করে সবাই বই পায় সে ব্যবস্থাই করা হয়েছে।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) সূত্রে জানা গেছে, ২০২১ শিক্ষাবর্ষে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের সোয়া চার কোটি শিক্ষার্থীর জন্য প্রায় ৩৬ কোটি বই তৈরি করা হয়েছে। তবে, করোনার কারণে কাঁচামাল দেশে ঠিক সময়ে পৌঁছানো ও মুদ্রণ শ্রমিকদের করোনা আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা করছেন অনেকেই। এছাড়া, কম দরে মানসম্মত বই ছাপার সংশয়ও ছিল। এত কিছুর পরও ডিসেম্বরের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বই পৌঁছানোর সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে এনসিটিবির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা জানান, আমাদের প্রস্তুতি সম্পন্ন। বই তৈরির কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। এখন সব প্রেসে। সেখান থেকে সরাসরি উপজেলা পর্যায়ে যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ‘নিম্নমানের কাগজে পাঠ্যবই ছাপানোর কোনো সুযোগ নেই। এজন্য এনসিটিবির ৪৫ জন কর্মকর্তা প্রেসগুলোতে মনিটরিং করছেন। আগামী ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহের মধ্যে দেশের সব উপজেলায় ৩৬ কোটি বই পৌঁছে দেয়া হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *