আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
করোনা বিরোধী লড়াইয়ে সবার আগে রাশিয়াই ঘোষণা করেছে তাদের ভ্যাকসিন তৈরি।

বিশ্বের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ স্পুটনিকের নাম অনুসারে এই ভ্যাকসিনের নাম রাখা হয়েছে স্পুটনিক ফাইভ। এবার ভ্যাকসিনটি উৎপাদনও শুরু করে দিয়েছে ভ্লাদিমির পুতিনের দেশ। রাশিয়ার সরকারের বার্তা সংস্থা টিএএসএস জানিয়েছে, চলতি মাসের শেষে দিকে তা বাজারে চলে আসবে।

গেল সপ্তাহে দেশটির প্রেসিডেন্ট পুতিনের ঘোষণার পর থেকেই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে জীবন রক্ষাকারী এই ভ্যাকসিন।
স্পুটনিক ফাইভের প্রথম ডোজটি পুতিনের এক মাত্র মেয়েকে দেয়া হয়েছে বলে দাবি করা হয় দেশটির পক্ষ থেকে। যদিও রাশিয়ার ভ্যাকসিন নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে বেশ কয়েকটি দেশের বিজ্ঞানীরা।

রাশিয়ার তৈরি ভ্যাকসিনে এখনও পর্যন্ত সবুজ সংকেত দেয়নি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (ডব্লিউএইচও)। অনেক প্রশ্ন নিয়েই স্পুটনিক ফাইভের উৎপাদন শুরু করলো বিশ্বের অন্যতম শক্তিধর দেশটি।
মস্কোর গামালেয়া ইনিস্টিটিউট এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করা হয়েছে।

তাদের দাবি, অন্তত ২ বছরের জন্য করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর থাকবে এই ভ্যাকসিন। শরীরে একবার স্পুটনিক ফাইভ প্রয়োগ করলে অন্তত ২ বছর করোনা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।
যদিও ভ্যাকসিনটির কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিদেশের পাশাপাশি দেশেও প্রশ্নের মুখে পুতিন।

ভ্যাকসিনের ছাড়পত্র দেওয়ার ক্ষেত্রে অনিয়মের অভিযোগ তোলা হয়েছে। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এথিক্স কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন ডা. অ্যালেকজান্ডার চুচলিন।

খ্যাতনামা চিকিৎসকের দাবি, ভ্যাকসিন তৈরিতে তাড়াহুড়া করতে গিয়ে চিকিৎসা বিজ্ঞানের কোনও নিয়ম নীতির মানা হয়নি।
তবে এসব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে উৎপাদন শুরু করে দিয়েছে রাশিয়া।
ওয়াই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *