মো. শামীম হোসেন,সাভার:

পৃথক ঘটনায় সাভার ও আশুলিয়ায় একই পরিবারের পাঁচ জনসহ নয় জনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করার ঘটনা ঘটেছে।

আহতদের সবাইকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে তিন জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে চিকিৎসকরা।

গত রাতে সাভার ও আশুলিয়ার বিভিন্ন স্থানে এঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী বলছে, রাতে সাভারের বক্তারপুরের কাটপট্টি এলাকা দিয়ে বাড়িতে ফিরছিলেন মোতালেব হোসেন নামের এক যুবক (৩৫)। এসময় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সন্ত্রাসীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে নগদ ২১ হাজার টাকা,একটি স্বর্ণের চেইন ও একটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।

অন্যদিকে পাওনা পঞ্চাশ হাজার টাকা চাওয়ায় সাভারের আমিনবাজার এলাকায় মহিউদ্দিন (৩৪) ও মর্জিনা (৫৫) নামের দুই জনকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে আমান ও মাজাহার নামের দুই ব্যক্তি।

আহতরা জানান, মর্জিনার কাছ থেকে আমান ও মাজাহার পঞ্চাশ হাজার টাকা ধার নিয়ে ছিলো। ধারের টাকা চাওয়ায় তারা তাদেরকে কুপিয়ে আহত করে।

অপর দিকে সাভারের ভাকুর্তা ইউনিয়নের মোগড়াকান্দা এলাকায় মোহাম্মদ আলী নামের (২৬) এক যুবককে এলোপাথারী ভাবে কুপিয়ে আহত করেছে আলী আজগর ও শাহ্ আলম নামের দুই ব্যক্তি। এঘটনায় রাতেই আহতের পরিবারের সদস্যরা সাভার মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ আলিম উদ্দিন নামের এক ব্যক্তিকে আটক করেছে।

এছাড়াও তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আশুলিয়ার কলতাসুতি চাতালবাড়ি এলাকায় মা মালতী বেগম, তার মেয়ে খাদিজা আক্তার,মোক্তা আক্তার, সানজিদা আক্তার ও ছেলে রনিকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে সন্ত্রাসীরা। এসব ঘটনায় আহত সবাইকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদের মধ্যে আমিনবাজারের মহিউদ্দিন, মর্জিনা ও ভাকুর্তার মোহাম্মদ আলীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদেরকে হাসপাতালের নিবির পরিচর্যা কেন্দ্র নিউরো আইসিইউতে ভর্তি রাখা হয়েছে। এসব ঘটনায় সাভার ও আশুলিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলে সাভার মডেল থানা ও আশুলিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

এ বিষয়ে সাভার মডেল থানার ওসি তদন্ত সাইফুল ইসলাম বলেন, তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *