হবিগঞ্জ প্রতিনিধি:
চট্টগ্রাম থেকে হবিগঞ্জ ফেরার পথে আন্তঃনগর পাহাড়িকা এক্সপ্রেস ট্রেনে এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত যুবক সাঈদ আরিফকে আটক করেছে পুলিশ। ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ধর্ষণের শিকার তরুণী বানিয়াচং উপজেলার বাসিন্দা। আটক যুবক সাঈদ আরিফ ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া উপজেলার আনোয়ার আজমের ছেলে। তিনি চট্টগ্রাম বিএসআরএম স্টিল কোম্পানির টেকনিশিয়ান ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

ধর্ষিতার পরিবারের অভিযোগ, ৫ বছর পূর্বে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দু’জনের পরিচয় হয়। এরপর থেকে তাদের মধ্যে প্রেম চলতে থাকে। মঙ্গলবার সকালে ওই তরুণী চট্টগ্রাম থেকে হবিগঞ্জের উদ্দেশে আন্তঃনগর পাহাড়িকা এক্সপ্রেস ট্রেনে ওঠেন। বিষয়টি ওই তরুণী সাঈদ আরিফকে জানান। এ সময় আরিফ প্রেমিকাকে না জানিয়েই ফেনী থেকে শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছার টিকিট কেটে রাখেন।

মঙ্গলবার দুপুরে ট্রেনটি ফেনী স্টেশনে পৌঁছলে আরিফ ট্রেনে ওঠেন। এ সময় তিনি প্রেমিকাকে পার্শ্ববর্তী কেবিনে নিয়ে যান। সেখানে তরুণীকে ধর্ষণ করে আরিফ। এক পর্যায়ে ওই তরুণী অসুস্থ হয়ে পড়লে আরিফ পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু তরুণী আরিফকে পালাতে বাধা দেন। এ সময় তরুণীর অসুস্থতার সুযোগ নিয়ে আবারও ধর্ষণ করেন আরিফ।

পরে ট্রেনটি শায়েস্তাগঞ্জ জংশনে পৌঁছামাত্র ওই তরুণী চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজন কেবিনের ভেতরে তাকে উদ্ধার করে। আরিফকে আটক করা হয়। পরে অসুস্থ তরুণীকে সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ঘটনার খবর পেয়ে সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) উৎসব কর্মকার হাসপাতালে পৌঁছে আরিফকে জনতার কাছ থেকে থানা হেফাজতে নেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুক আলী বলেন, মঙ্গলবার ট্রেনে ওই তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে বিষয়টির সত্যতা এখনও বলা যাচ্ছে না। মামলা দায়ের করলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *