নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজধানীর পল্লবীতে এক ব্যক্তিকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার বিকেলে পল্লবী মহিলা ডিগ্রি কলেজের পাশে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থলের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছে। তবে শুক্রবার রাত পর্যন্ত কাউকে শনাক্ত বা আটক করা যায়নি বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

নিহত এই ব্যক্তির নাম ফিরোজ (৪০)। তিনি আটকে পড়া পাকিস্তানি (বিহারী)। মিরপুর-১২ নম্বর সেকশনের ই-ব্লকের চার নম্বর রোডের মুরাপাড়া বিহারি ক্যাম্পে থাকতেন। তাঁর দুই ছেলে এক মেয়ে। একটি মামলায় ১৪ বছর জেল খেটে গত বছর তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন স্বজনেরা। এরপর অটোরিকশা চালাতেন।

ফিরোজের স্ত্রী সালমা বেগম  বলেন, বিকেল পাঁচটার দিকে ফিরোজকে ফোন করে কেউ যেতে বলে। ফিরোজ ঘর থেকে বেরিয়ে যান। এর আধা ঘণ্টা পর জানতে পারেন তাঁকে মেরে রাস্তার পাশে ফেলে গেছে কেউ। কে বা কারা কেন ফিরোজকে মেরেছে সে বিষয়ে তারা কিছু জানেন না।

সালমা বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছে। সেখানে দেখা গেছে তিনজন লোক মোটরসাইকেল করে চলে যাচ্ছেন। এরাই ফিরোজকে মেরেছেন কিনা তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম  বলেন, ঘটনাস্থলের আশপাশের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করে পর্যালোচনা করা হচ্ছে। স্থানীয় কয়েকজন খুনের ঘটনা দেখেছেন বলেও তথ্য মিলেছে। তবে কেউ পুলিশের কাছে তা স্বীকার করেননি। প্রযুক্তির সহায়তায় তদন্ত করা হচ্ছে। ¯দ্রুতই জড়িতদের শনাক্ত করা যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

ওসি বলেন, ধারালো অস্ত্র দিয়ে ফিরোজের ঘাড়ে আঘাত করা হয়েছে। তাঁর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *