জেলা প্রতিনিধি,নড়াইল:
নড়াইলে নিজ বাড়িতে এক বছর সাজা খেটে এক আসামি উপহার পেলেন জায়নামাজ ও ফুলের তোড়া।

এক বছর আগে নড়াইলের নড়াগাতি থানার নলামারা গ্রামের মৃত রাজ্জাক মিনার ছেলে বালাম মিনা (৪৬) মাদকের মামলায় আটক হন। এরপর নড়াইলের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আদালতের বিচারক আমাতুল মোর্শেদা তাকে কারাগারে না পাঠিয়ে সংশোধনের জন্য নিজ বাড়িতে থেকে এক বছর সাজাভোগের ব্যতিক্রমী আদেশ দেন।

নড়াইলের প্রবেশন অফিসার বাপ্পী কুমার সাহার তত্ত্বাবধানে বালাম মিনা সাজা খাটতে থাকেন। গত মঙ্গলবার ওই সাজার মেয়াদ শেষ হওয়ায় আদালতের আদেশে মুক্ত হয়েছেন তিনি।

এদিন দুপুরে বালাম মিনাকে ওই বিচারিক আদালত ও প্রবেশন কর্মকর্তার পক্ষ থেকে একটি জায়নামাজ ও ফুলের তোড়া উপহার দেওয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নড়াইল জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট উত্তম কুমার ঘোষ, অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট সঞ্জীব কুমার বসু, আসামির অ্যাডভোকেট বিশ্বজিৎ বিশ্বাস প্রমুখ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বালাম মিনার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা ছিল। এ মামলায় ২০১৯ সালের ২৫ আগস্ট ‘দ্য প্রবেশন অব অফেন্ডার্স অর্ডিন্যান্স ১৯৬০’-এর ধারা-৪ অনুযায়ী তাকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। সাজা খাটা শেষে তার প্রবেশন কর্মকর্তা একই আদালতে তার মুক্তির জন্য আবেদন করেন। এর শুনানি শেষে মিনাকে মুক্তি দেওয়া হয়।

চূড়ান্তভাবে মুক্ত হতে পেরে খুবই খুশি বালাম মিনা। তিনি বলেন, আমি ইজিবাইক চালিয়ে বৃদ্ধা মা, স্ত্রী ও তিন মেয়েসহ মোট ছয়জনের সংসার চালাই। আমি জেলে গেলে আমার পরিবারের অন্যদের না খেয়ে থাকতে হতো। আদালতের দয়ায় আমি জেল থেকে রক্ষা পেয়েছি। আমি আর কোনোদিন কোনো অপরাধ করব না। বাপ্পী কুমার সাহা জানান, বালাম মিনা সব শর্ত মেনেছেন এবং তার পরিবার, প্রতিবেশী সবাই বলেছেন তিনি সংশোধন হয়েছেন।

এ কারণে বিচারিক আদালত তাকে চূড়ান্তভাবে মুক্ত করে দিয়েছেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *