আব্দুল হান্নান নাসিরনগর (ব্রাক্ষণবাড়িয়া):

ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের মাঠে এবছর আমন ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় এখানকার কৃষকদের চোখে-মুখে আনন্দের ঝিলিক দেখা দিয়েছে।

পাকা ধানে দোলা দিচ্ছে কৃষকের ক্ষেত। মাঠে মাঠে সোনালি ধানের ঘ্রাণ। কৃষাণ-কৃষাণীরা গোলা, খলা, উঠান পরিষ্কার,ধানকাটা, মাড়াই,সিদ্ব আর শুকানোর কাজে পার করছে ব্যস্ত সময় ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ধান কাটা ও মাড়াইয়ের এমন চিত্র। অনেক বাড়িতে ধান কাটার জন্য ময়মনসিংহ সহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে
লোকজনও এসে গেছে। ইতিমধ্যে হাটবাজারে নতুন ধান উঠতে শুরু করেছে।

বর্তমানে ধানের দামও ভালো। তাছাড়া আগাম ধান কাটার পর আবার একই জমিতে সরিষা,গম,ডাল সহ বিভিন্ন রবিশষ্য চাষ করতে পারবেন কৃষকরা।

নাসিরনগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আবু সাঈদ তারিক জানান,এ বছর আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ১০ হাজার ৫২০ হেক্টর। আনুমানিক অর্জিত হয়েছে ১০ হাজার ৪৩২ হেক্টর। তিনি আরো জানান, পরিবেশ ভালো থাকায় এবার আমন ধানে বিভিন্ন ধরনের রোগবালাই কম হওয়ায় কৃষকরা স্বপ্রণোদিত হয়ে বাড়তি জমিতে আমন ধানের চাষ করেছ।

তিনি বলেন, প্রতি বিঘা জমিতে আমন ধান আবাদ করতে খরচ হয় ৭-৮ হাজার টাকা পর্যন্ত। আগাম জাতের উৎপাদনের সময় লাগে ৯০-১০০ দিন। এ থেকে ধান উৎপাদন হয় ৮/১০ মণ পর্যন্ত। আর অন্য জাতের ধান উৎপাদনে সময় লাগে ১২০ দিন পর্যন্ত। ধান উৎপাদন হয় ১৫/২০ মণ পর্যন্ত। তবে এবার ধানের দাম পাবে কৃষকরা। বর্তমানে বাজারে প্রতি মণ নতুন ধান বিক্রি হচ্ছে ৮ শত থেকে ৯ শত টাকা ধরে বিক্রি হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *