আরিফুল ইসলাম,নওগাঁ:

জেলার মহাদেবপুর উপজেলার চেরাগপুর ইউনিয়নের আজিপুর গ্রামে সাত একর জমির উপর ২২৫ ফিট লম্বা ও ২৫-৩০ ইঞ্চি চওড়া মাটির দেয়ালে তৈরি দেশের সর্ববৃহৎ ১০৮ কক্ষবিশিষ্ট দৃষ্টিনন্দন মাটির ঐতিহ্যবাহী একটি দোতালা বাড়ি।

আজ বিকালে এই ঐতিহ্যবাহি বাড়িটি পরিদর্শন করেছেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার হুমায়ন কবীর খন্দকারের সহ-ধর্মিনী নাসরিন খন্দকার ও ছেলে মো: সামিসহ অনেকে।

উপজেলার চেরাগপুর ইউনিয়নের আজিপুর গ্রামে সাত একর জমির উপর ২২৫ ফিট লম্বা ও ২৫-৩০ ইঞ্চি চওড়া মাটির দেয়ালে তৈরি এ বাড়িটি দেখে কমিশনার পত্নী অভিভূত হয়েছেন। এমন বিরল মাটির বাড়ি তিনি কখনো দেখেননি। এসময় অন্যদের মধ্যে নওগাঁ জেলা প্রশাসক মো: হারুন-অর-রশিদের সহ-ধর্মিনী তাহমিনা শারমিন দীনা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) উত্তম কুমার রায়ের সহ-ধর্মিনী মিসেস জ্যোতির্ময়ী বর্মণ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান মিলন, তার সহ-ধর্মিনী জেইন ইফফাত লগ্ন, নওগাঁ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ফারাহ তাকমিলা, চেরাগপুর ইউপি চেয়ারম্যান শিবনাথ মিশ্র তার সঙ্গে ছিলেন।

তারা বাড়ির বিভিন্ন অংশ ঘুরে ঘুরে দেখেন। লোকজনের সাথে একান্তে কথা বলেন, বাড়িটি নির্মাণের ইতিহাস শোনেন এবং বেশ কিছু সময় সেখানে কাটান। অতিথিরা মহাদেবপুর পৌঁছলে ইউএনও তাদেরকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। এরআগে দুপুরে বিভাগীয় কমিশনার নওগাঁ সদর উপজেলা ভূমি অফিসের নতুন ভবন নির্মাণকাজের ভিত্তিফলক উন্মোচন করেন। উল্লেখ্য, ১০৮ কক্ষবিশিষ্ট দৃষ্টিনন্দন বাড়িটি একবার পায়ে হেটে চারধার ঘুরে দেখতে সময় লাগে ৫ মিনিটেরও অধিক।

বিশাল এ বাড়িটিতে প্রবেশের দরজা আছে ১১টি। তবে প্রতিটি ঘরে রয়েছে একাধিক দরজা। আবার কোনো কোনো কক্ষে ৪-৫টি দরজা রয়েছে। দোতালায় উঠার সিঁড়ি রয়েছে ১৩টি। তবে যে কোনো একটি সিঁড়ি দিয়ে যাওয়া যাবে ১০৮টি কক্ষে। এ বাড়িটিতে এখন ৩৫-৪০ জন লোক বসবাসের জন্য সবমিলে ৩০-৩৫টি কক্ষ ব্যবহার করেন। আলিপুর গ্রামের সমশের আলী মন্ডল ও তাহের আলী মন্ডল নামের সহোদর দুই ভাই শখের বসে তৈরি করেছিলেন এই বাড়িটি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *