নিজস্ব প্রতিবেদক:

আজ সকাল সাড়ে ১০টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রেল সেতু প্রকল্পটির নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু সেতুতে বিদ্যমান লাইনের সক্ষমতা সংকট ও গতির নিয়ন্ত্রণাদেশে আরও একটি নতুন সেতু নির্মাণের বিষয়টি সময়ের দাবি হয়ে উঠেছে।দেশের সবচেয়ে বড় রেলসেতু নির্মাণের মহাকর্মযজ্ঞ শুরু হচ্ছে আজ রোববার (২৯ নভেম্বর) থেকে। ৪ দশমিক ৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের বিশেষায়িত এই সেতুটি দেশের পূর্বাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলের মধ্যে রেল সংযোগের নতুন দিগন্ত উন্মোচন করবে।

প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকায় ব্যয়ে বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুর ৩০০ মিটার উজানে এই রেল সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রকল্প পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০২৪ সালের আগস্টে নির্মাণকাজ শেষ হবে।

সশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ভারসাম্যপূর্ণ রেল যোগযোগ ব্যবস্থা গড়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। এ কারণে বঙ্গবন্ধু সেতুর ৩০০ মিটার উজানে ডেডিকেটেড ডাবল লেনের রেল সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। এটি নির্মাণ হলে দুটি ট্রেন একসঙ্গে যেতে পারবে এবং ১০০ কিলোমিটার বেগে সেতুটি অতিক্রম করতে পারবে।

এ সেতুর মাধ্যমে দ্রুত পারাপার হতে পারবে উত্তর, দক্ষিণ ও পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী ট্রেনগুলো। এতে রেলযাত্রীদের ভোগান্তি কমার পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে বলে মনে করছে স্থানীয়রা।

১৯৯৮ সালের ২৩ জুন উদ্বোধন করা হয় যমুনা নদীর ওপর নির্মিত দেশের সবচেয়ে বড় ও উপমহাদেশের অন্যতম প্রায় পাঁচ কিলোমিটার বঙ্গবন্ধু সেতু। শুরুতে পরিকল্পনায় না থাকলেও পরবর্তীতে এর নকশায় যোগ করা হয় রেল চলাচলের বিষয়টি। ওই বছরের ২৩ জুন থেকে আজ পর্যন্ত সেতুটিতে রেলগাড়ি চলছে ঠিকই; তবে তা ঢিমেতালে, কোনোমতে।

২০০৮ সালে সেতুটিতে প্রথমবার ফাটল দেখা দেয়। এরপর থেকে এতে রেল চলাচলের গতিও কমিয়ে আনা হয়। এখন সর্বোচ্চ ২০ কিলোমিটার গতিতে এই সেতু দিয়ে ট্রেন চলাচল করে। প্রতিদিন ২২টি ট্রেন চলার কথা থাকলেও এখন চলে ৪৪টি ট্রেন অনেকটা ঝুঁকি নিয়েই।

বর্তমান বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতুতে সিঙ্গেল লাইনের সীমাবদ্ধতায় ক্রসিংয়ের জটিলতায় সেতু পার হতে ট্রাফিক সিগন্যালেই নষ্ট হয় যাত্রা পথের বড় একটা সময়। ডাবল লাইনের নতুন সেতুটি নির্মাণ সম্পন্ন হলে ১০০ কিলোমিটার গতিতে যমুনা নদীতে ট্রেন পার হবে। আরও নিবিড় হবে রাজধানীর সঙ্গে কার্যকর ও গতিময় রেল যোগাযোগ।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *