অনলাইন ডেস্ক:


অনুমতি ছাড়া করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের সরকারি নথির ছবি তোলার অভিযোগে দৈনিক প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এর প্রতিবাদে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে ডাকা সংবাদ সম্মেলন বয়কট করেছে সাংবাদিকরা। এবার সেই প্রতিবাদে শামিল হলেন সংসদ সদস্য মাহবুব উল আলম হানিফ।

মঙ্গলবার (১৮ মে) সন্ধ্যায় তার ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে তিনি এ ঘটনার প্রতিবাদ জানান।

ফেসবুক পোস্টে হানিফ লেখেন, ‘সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে নয়, দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিলে দেশ-জাতি উপকৃত হবে।’

আতাউল মাহমুদ নামে একজন কমেন্টে লিখেছেন, ‘একজন মাহবুবউল হানিফ ভাই যিনি বলতে পারেন এই কথা। লাবণ্য ভূঁইয়া বলেন, ‘এই জন্যই আপনাকে সবাই নেতা মানে। নেতা চাইলেই সবাই হতে পারে না। সাদেকা হালিম বলেন, সময়ের উপযুক্ত কথা।’

শাহ তানজিল নামে একজন কমেন্টে লিখেছেন, ‘সত্যি কথা। দুর্নীতিবাজ সরকারি কিছু অফিসারদের কারণে আওয়ামী লীগকে আজ প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এই ঘুষখোরদের কারণেই অনেক উন্নয়নমুলক কাজের গতি (efficiency rate) কম। আবার এদের দুর্নীতির কারণেই অনেক সময় সরকারের পতনও ঘটে। সরকার ৫ বছরের কিন্তু সরকারি অফিসারদের ২৫+ বছরের রাজত্ব একটা অসামঞ্জস্য আনে। দুর্নীতির সর্বোচ্চ সাজা নিশ্চিত করলে দেশের এই গান্ধি পোকাদের গন্ধ কমানো যেত।’

ফারজানা হোসাইন নামে একজন কমেন্ট করেছেন, ‘প্রশাসন রাষ্ট্রকে গণমাধ্যমের মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে। সরকারের ভালো অর্জন এভাবে দুর্নীতিবাজদের কারণে নষ্ট হতে পারে না। আপনার মুক্ত মনোভাব এর জন্য ধন্যবাদ ভাই।’

মঙ্গলবার (১৮ মে) সন্ধ্যা ৬টা ৫৯ মিনিটে এ পোস্ট করেন তিনি। এতে হাজার হাজার লাইক পড়ছে। এছাড়া প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত (রাত ৮টা) ২৪১ জন পোস্টটি শেয়ার করেছেন। আর সেই সঙ্গে অনেকেই নানা মন্তব্য করেছেন।

ওই পোস্টে কমেন্ট করেছেন জিটিভির সিনিয়র কর্মকর্তা অঞ্জন রায়। কমেন্টে তিনি হানিফের সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন। তিনি লিখেছেন, ‘মাহবুবউল আলম হানিফ ভাই, শতভাগ একমত আপনার বক্তব্যের সাথে।’

এদিকে, মঙ্গলবার (১৮ মে) দুপুরে সচিবালয়ে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা ও গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ডাকা সংবাদ সম্মেলন বয়কট করেছে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) ও বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএইচআরএফ)।

সেসময় সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কাজী জেবুন্নেছা বেগমসহ কয়েকজন কর্মকর্তা সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেওয়ার জন্য বসেন। ঠিক তখনই বিএসআরএফের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ বলেন, সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনার প্রতিবাদে সাংবাদিকেরা এ সংবাদ সম্মেলন বর্জন করছেন।

শামীম আহমেদ বলেন, গতকাল সোমবার (১৭ মে) রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার সময় সাংবাদিকেরা বারবার স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিবের বক্তব্য নেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু তিনি কোনো বক্তব্য দেননি।

শামীম আহমেদের এ ঘোষণার পর সভাকক্ষে উপস্থিত সাংবাদিকেরা একযোগে বেরিয়ে যান। তখন অতিরিক্ত সচিব কাজী জেবুন্নেছা বেগম অনেকটা হতবাক হয়ে তাকিয়ে ছিলেন এবং বার বার সাংবাদিকদের বসতে বলছিলেন। কিন্তু তার কথা কানে না নিয়ে সাংবাদিকরা সেখান থেকে সাংবাদিকরা বেরিয়ে যান।

প্রসঙ্গত, অনুমতি ছাড়া করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের সরকারি নথির ছবি তোলার অভিযোগে দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখার পর শাহবাগ থানা পুলিশে সোপর্দ করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

এরপর মঙ্গলবার (১৮ মে) সকালে তাকে আদালতে হাজির করে পাঁচদিনের রিমান্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহবাগ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আরিফুর রহমান সরদার।

পরে রোজিনা ইসলামের রিমান্ড আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয় আদালত। এরপর প্রিজন ভ্যানে করে তাকে গাজীপুর জেলার কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগারে পাঠানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *