অনলাইন ডেস্ক:
দক্ষ জনশক্তি তৈরির লক্ষ্যে মানসম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিত করতে এবং কর্মসংস্থানমুখী শিক্ষার উন্নয়নে ৪৯টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের জন্য মোট ১ হাজার ৬১টি ক্যাডার পদ তৈরি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন,কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. মো. ওমর ফারুক।খবর বাসসের।

সচিব বলেন, কারিগরি শিক্ষাকে প্রশারিত করার পদক্ষেপের অংশ হিসেবে সরকার প্রথমবারের মতো কারিগরি প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য ক্যাডার পদ তৈরি করেছে।

তিনি বলেন, দেশে ও বিদেশে বর্তমান চাকরির বাজারে দক্ষ জনশক্তি তৈরিতে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার উন্নয়নে সরকারের অগ্রাধিকারের অংশ হিসেবে এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

প্রথমে এক হাজার ২৪৪টি ক্যাডার এবং ১২ হাজার ৭২৮টি নন-ক্যাডার পদ মিলিয়ে মোট ১৩ হাজার ৭২টি পদ সৃষ্টির প্রস্তাব দিয়েছিল জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। পরে অর্থ বিভাগের রাজস্ব খাত এক হাজার ৬১টি ক্যাডার এবং ১১ হাজার ৫৪৬টি নন ক্যাডার মিলিয়ে মোট ১২ হাজার ৬০৭টি পদ সৃষ্টির বিষয়ে সম্মত হয়।

২০১৯-২০, ২০২০-২১ এবং ২০২১-২২ অর্থবছরে এসব পদে নিয়োগ সম্পন্ন হবে।

ওমর ফারুক বলেন, সরকার প্রতিটি উপজেলায় একটি কারিগরি স্কুল ও কলেজের জন্য একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে এবং ১০০ টি নতুন কারিগরি প্রতিষ্ঠান স্থাপনের কাজ চলছে।
বর্তমানে দেশে ১ শ’ ১৩টি সরকারি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে, এর মধ্যে ৪৯টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট এবং ৬৪টি কারিগরি কলেজ এবং দেশে ৪ হাজার ৭ শ’ ২৭টি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তীব্র জনশক্তি সংকট কমাতে সরকার ১ শ’ ১৩টি কারিগরি স্কুল, কলেজ ও পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে নিয়োগের জন্য প্রায় ১২ হাজার ৬ শ’ ৭টি এসব পদের মধ্যে ১ হাজার ৬১টি ক্যাডার পদ এবং ১১ হাজার ৫ শ’ ৪৬টি নন-ক্যাডার পদ সৃষ্টি করেছে।

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অধীনে ৪৯টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের জন্য পাঁচটি বিভাগের ক্যাডার পদ তৈরি করা হচ্ছে। এই পদের মধ্যে ২০টি ভাইস প্রিন্সিপাল পদ (জাতীয় পে-স্কেলে গ্রেড-৫), অন্যদিকে ১ শ’ ৬৯ জন প্রধান প্রশিক্ষক (গ্রেড-৬), ৫৭ জন প্রধান প্রশিক্ষক (নন-টেকনিক্যাল) (গ্রেড-৬), ৫ শ’ ১০ জন প্রশিক্ষক (গ্রেড-৯) এবং ৩ শ’ ৫ জন প্রশিক্ষক (গ্রেড-৯)।

ওমর ফারুক আরও বলেন, যেহেতু বিদেশে দক্ষ শ্রমিকদের উচ্চ চাহিদা রয়েছে, এই উদ্যোগ বাংলাদেশী শ্রমিকদের বৈদেশিক কর্মসংস্থান এবং রেমিটেন্স প্রবাহের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। গত বছর কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ থেকে এর চাহিদা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে দেয়া হয়েছিল। পরে বিষয়টি অর্থ বিভাগে পাঠানো হয়। অর্থ বিভাগের সম্মতিও পাওয়া গেছে।

১ শ’ ১৩টি সরকারি ইনিস্টিটিউটের জন্য বিপুল সংখ্যক পদ তৈরির সরকারি আদেশ জারি করার জন্য ইতোমধ্যে সকল প্রয়োজনীয় প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *