নিজস্ব প্রতিবেদক,রাঙামাটি: 

ছাত্রলীগের চার নেতার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানিসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন রাঙামাটি সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক নাসরিন ইসলাম।

আজ শনিবার সকালে রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সম্মেলন কক্ষে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

লিখিত বক্তব্যে নাসরিন ইসলাম বলেন, ‘জেলা ছাত্রলীগের মেজবাহ উদ্দিন, হাবিবুর রহমান বাপ্পী, কায়সার আহম্মেদ ও ইমরুল উদ্দিনসহ ১০-১৫ জন মিলে আমাকে দরজার ভেতরে থেকে ছিটকিনি দিয়ে আটকে ছুরি, রড দিয়ে আঘাত করে। এমনকি নাবালিকা মেয়েকে নির্যাতন করে কাপড় ছিঁড়ে ফেলে।’

তিনি আরও বলেন, ‘উপজেলা পরিষদের টিউবওয়েল বসানো নিয়ে সভা চলার সময় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর জব্বার সুজনের ছত্রছায়ায় ছাত্রলীগের এই চার নেতা আমার বাসায় হামলা করে। এসময় বাসার ভেতর ভাঙচুরসহ আমাকে শ্লীলতাহানিরও চেষ্টা চালায়। এদের মধ্যে মেজবাহ উদ্দিন আমার বিল্ডিংয়ে ভাড়া থাকে। দীর্ঘদিন ধরে সে ভাড়া দেয় না। ভাড়া চাইলে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে।’

‘এসব বিষয়ে কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ দায়ের করলেও তা এখনো মামলা হিসেবে নেওয়া হয়নি। আমি নিজেই আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি, আওয়ামী লীগের সমর্থনে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েও ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের কারণে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। এসব কর্মকাণ্ডে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে’, বলেন নাসরিন ইসলাম।

তবে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর জব্বার সুজন সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘এটি এলাকাভিত্তিক ঘটনা। এখানে দলীয় বিষয়টি টেনে আনা ঠিক হবে না। উনিও দলীয় ব্যানারে নির্বাচিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান। তাই আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টির সমাধান হয় কিনা চেষ্টা করেছিলাম কিন্তু উনি যেহেতু থানায় অভিযোগ দিয়েছেন, এখন পুরো বিষয়টি আইনের মাধ্যমে সমাধান হোক।’

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *