ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:
ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডুতে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সর্মথকদের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে গুরুতর কয়েকজনকে স্থানীয় সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শনিবার সকাল ৭টার দিকে উপজেলার ছোট ভাদড়া গ্রামের এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

গ্রাম্য সূত্র জানায়, হরিণাকুন্ডু উপজেলায় ২০২১ সালে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ওই নির্বাচন নিয়ে উপজেলার সবগুলো ইউনিয়নের সরকার সর্মথকরা ইতোমধ্যে দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। বিশেষ করে চাঁদপুর ইউনিয়ন সবচেয়ে বেশি উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। এ ইউনিয়নের ছোটভাদড়া গ্রামে সামাজিক আধিপত্য বিস্তার করা নিয়ে আব্দুর রশিদ ও আব্দুল লতিফ ওরফে লতার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে।

শুক্রবার রাতে আব্দুর রশিদের সমর্থক নাজমুল ও লতার সমর্থক সবুজের মধ্যে গাজা খাওয়া নিয়ে বাক-বিতণ্ডা হয়। তুচ্ছ এ ঘটনার জের ধরে উভয় পক্ষের লোকজন সকালের দিকে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় নারীসহ উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়।

হরিণাকুন্ডু থানার ওসি আব্দুর রহিম জানান, শুক্রবার রাতে ওই গ্রামের দুই যুবকের মধ্যে গাঁজা খাওয়া নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে শনিবার সকালে গ্রামের আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সর্মথকদের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। এসময় ইটপাটকেল নিক্ষেপে উভয় পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয়। খবর পেয়ে দ্রুত পুলিশ গ্রামটিতে অবস্থান নেয় এবং সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনে। দুপুরের দিকে বিবাদমান দুই পক্ষের নেতাদের নিয়ে বৈঠক করেছে পুলিশ।

ওই ইউনয়নের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা জানান, বিষয়টি নিয়ে সন্ধ্যায় হরিণাকুন্ডু থানায় বৈঠকের কথা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *