আদালত প্রতিবেদক:

এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গৃহবধুকে ধর্ষণের ঘটনার দায় নিরূপণে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে অনুসন্ধানের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এজন্য তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে দিয়েছেন আদালত।

সিলেটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক, সিলেট চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও সিলেটের অতিরিক্ত জেলা জজ (সাধারণ) সমন্বয়ে এ কমিটি করা হয়েছে।

এ কমিটিকে হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়ার নেতৃত্বাধীন হাইকোর্টের ভার্চ্যুয়াল বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত রুলসহ ওই আদেশ দেন।

একইসঙ্গে তদন্তকাজে প্রয়োজনীয় সব ধরনের সরঞ্জাম সরবরাহ করতে সিলেটের জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া কমিটির সদস্যদের নিরাপত্তা দিতে সিলেট পুলিশ কমিশনারকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ধর্ষণের শিকার তরুণীকে রক্ষায় অবহেলা ও অছাত্রদের কলেজে অবস্থান বিষয়ে নীরবতায় অধ্যক্ষ ও হোস্টেল সুপারের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে। শিক্ষাসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, আইনসচিব, এমসি কলেজের অধ্যক্ষ, হোস্টেল সুপারসহ বিবাদীদের দুই সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদালত বলেছেন, সংবিধানের অভিভাবক হিসেবে এ ধরণের ঘটনায় সর্বোচ্চ আদালত নির্লিপ্ত থাকতে পারে না।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মেসবাহ উদ্দিন। অপরদিকে  রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নওরোজ মো. রাসেল চৌধুরী।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *