সিএনএস ডেস্ক:

গত শুক্রবার সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে তরুণী গণধর্ষণের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার অন্যতম আসামি ছাত্রলীগ নেতা মাহবুবুর রহমান রনি ও রবিউল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

রোববার রাত ১০টার দিকে হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ থেকে শাহ্ মাহবুবুর রহমান রনিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাবের একটি বিশেষ অভিযানিক দল। অন্যদিকে জেলার নবীগঞ্জ উপজেলা থেকে রবিউলকে গ্রেপ্তার করে হবিগঞ্জ পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)।

গ্রেপ্তারকৃত মাহবুবুর রহমান রনির বাড়ি হবিগঞ্জ সদর থানার বাগুনীপাড়ায়। রবিউল ইসলামের বাড়ি সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই থানাধীন বড়নগদীপুর,জাগদল গ্রামে।

শাহ্ মাহবুবুর রহমান রনিকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেট র‌্যাব-১০-এর মিডিয়া অফিসার এএসপি ওবাইন এবং রবিউলকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হবিগঞ্জ পুলিশের একজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

রোববার ভোর ৬টায় ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমানকে (২৮) সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার সীমান্ত হয়ে ভারতে পালানোর সময় গ্রেপ্তার করে সুনামগঞ্জের ছাতক থানা পুলিশ। অন্যদিকে আরেক আসামি অর্জুন লস্করকে (২৫) হবিগঞ্জের গোয়েন্দা পুলিশ।

প্রসঙ্গত: গত শুক্রবার বিকেলে এমসি কলেজে বেড়াতে গিয়েছিলেন সিলেটের দক্ষিণ সুরমার এক দম্পতি। এ সময় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে পাঁচ-ছয়জন যুবক জোরপূর্বক কলেজের ছাত্রাবাসে নিয়ে যায় দম্পতিকে। সেখানে একটি কক্ষে স্বামীকে আটকে রেখে ১৯ বছরের গৃহবধূকে গণধর্ষণ করেন তারা। পরে খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে গৃহবধূকে উদ্ধার করে সিলেট সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি সেন্টারে ভর্তি করেন শাহপরাণ থানা পুলিশ।

এ ঘটনায় শনিবার সকালে শাহ পরান থানায় মামলা দায়ের করেন ভূক্তভোগী গৃহবধূর স্বামী।

এছাড়া বিষয়টি তদন্তে তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। ৭ কার্যদিবসের মধ্যে এই কমিটিকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে ছাত্রাবাসের দুই নিরাপত্তাকর্মীকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *