অনলাইন ডেস্ক:
করোনা মোকাবেলায় কেনাকাটা পরিচালনায় স্ট্রার্ন্ডাড অপারেটিং প্রসিডিওর (এসওপি) প্রস্তুতে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির ৭টি কার্যপরিধিও নির্ধারণ করা হয়েছে। বুধবার (৫ আগস্ট) মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ড. বিলকিস বেগম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ বিষয় জানানো হয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস মোকবেলায় কোভিড-১৯ চিকিৎসায় ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি/মালামাল কেনা কাটায় সম্পন্নের জন্য এসওপি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব হাসপাতাল (স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ)’কে আহবায়ক এবং কেন্দ্রীয় ঔষধাগার (সিএমএসডি) পরিচালককে সদস্য সচিব করে ১১ সদস্যের এই কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন- প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের প্রতিনিধি, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রতিনিধি, অর্থ বিভাগের প্রতিনিধি, সিপিটিউ প্রতিনিধি, স্বাস্থ্য অধিদফতরের প্রতিনিধি, ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের প্রতিনিধি, কম্পট্রোলার এন্ড অডিটর জেনারেল এর প্রতিনিধি। ১১ সদস্যের কমিটিতে নয় সদস্যের ক্ষেত্রে পদের নাম উল্লেখ করা হলেও দুটি সদস্যর ক্ষেত্রে ব্যক্তির নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এরা হলেন মুগদা মেডিকেল কলেজের প্রিন্সিপাল প্রফেসর ডা. টিটু মিয়া এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজের কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান প্রফেসর ডা. আব্দুল ওয়াদুদ চৌধুরী।

এই কমিটির ৭টি কার্যপরিধিও ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। এগুলো হলো-১. এই কমিটি দীর্ধমেয়াদী কেনাকাটা সম্পন্নের জন্য ক্রয় পরিবল্পনা প্রনয়ণ করবে। ২. আগামী ৬ মাস বা এক বছর জন্য কোভিড-১৯ চিকিৎসায় ব্যবহৃত মালামালের ক্রয় পরিকল্পনা প্রনয়ণ করবে।

৩. কমিটি প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মতামত গ্রহণ করতে পারবে। ৪. তড়িঘড়ি পরিহার করতে কমিটি আগে থেকে প্রয়োজনীয় মালামাল কেনার সুপারিশ করবে। ৫. কোভিড-১৯ চিকিৎসায় ব্যবহৃত মালামালের সম্ভব্যতা নির্ধারণ করে উপযুক্ত সিদ্ধান্ত প্রদান করবে।

৬. এসব মালামাল বা যন্ত্রপাতির গুনগত মান পরিমান ও আর্থিক ক্ষতি রোধে উপযুক্ত নির্দেশনা দেবে। ৭. প্রয়োজনে কমিটি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সদস্য কো-অপ্ট করতে পারবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *