অর্থনৈতিক প্রতিবেদক:


অর্থনীতির পরিস্থিতি নিয়ে এ বছরের এপ্রিলে প্রকাশিত ‘এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক ২০২১’ প্রতিবেদনের হালনাগাদ প্রতিবেদনে বাংলাদেশকে নিয়ে বলা হয়েছে, এক বছরের ব্যবধানে রপ্তানি আয়ে ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ও প্রবাসীদের পাঠানো বৈদেশিক মুদ্রার আয়ে ৩৯ দশমিক ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির পুনরুদ্ধার অব্যাহত রয়েছে।

ঈদের আগের দিন মঙ্গলবার প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে ম্যানিলাভিত্তিক এই উন্নয়ন সংস্থাটি।

৩০ জুন শেষ হওয়া ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসের (২০২০ সালের ১ জুলাই থেকে ২০২১ সালের ৩১ মে) তথ্য বিশ্লেষণ করে সম্পূরক এই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে এডিবি।

এডিবি ঢাকা কার্যালয়ের বহিঃসম্পর্ক বিভাগের প্রধান গোবিন্দ বর বলেন, ‘প্রতি বছর এপ্রিলে যে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক প্রকাশ করা হয়ে থাকে, পরে তার তিনটি আপডেট রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়ে থাকে। একটি করা হয় জুলাইয়ে। পরেরটা প্রকাশ করা হয় সেপ্টেম্বরে। আর সর্বশেষটা প্রকাশ করা হয় ডিসেম্বরে।’

তিনি জানান, পরের তিনটি প্রতিবেদনকে সম্পূরক প্রতিবেদন বলা হয়। জুলাইয়ের প্রতিবেদনটি মঙ্গলবার প্রকাশ করেছে এডিবি।

প্রতিবেদনে চলতি বছর বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার নিয়ে কিছু উল্লেখ না থাকলেও দক্ষিণ এশিয়াসহ পুরো উন্নয়নশীল এশিয়ার প্রবৃদ্ধির হার আগের পূর্বাভাসের চেয়ে সামান্য কমিয়ে ধরা হয়েছে।

২০২০-২১ অর্থবছরের ১১ মাসের তথ্য তুলে ধরে প্রতিবেদনে বাংলাদেশ সম্পর্কে বলা হয়, এক বছরের ব্যবধানে রপ্তানি আয়ে ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ও প্রবাসীদের পাঠানো বৈদেশিক মুদ্রার আয়ে ৩৯ দশমিক ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির পুনরুদ্ধার অব্যাহত রয়েছে।

গত বছরের এপ্রিল শেষে এক বছরের ব্যবধানে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের আদায় করা রাজস্ব আয়ে ১২ দশমিক ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধির কথাও তুলে ধরেছে এডিবি।

তবে এপ্রিলের শুরুতে করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউ রুখতে দেশজুড়ে আরোপ করা বিধিনিষেধের কারণে ‘ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড যে বিঘ্নিত হয়েছে’ তাও এডিবির সম্পূরক প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে।

উন্নয়ন সংস্থাটি বলছে, অভ্যন্তরীণ চাহিদা কমে খাদ্যবহির্ভূত মূল্যস্ফীতির গতি শ্লথ হওয়ায় এপ্রিল পর্যন্ত গত অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে বাংলাদেশে গড় মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৬ শতাংশে, যা পুরো বছরের পূর্বাভাস ৫ দশমিক ৮ শতাংশের কিছুটা কম।

সম্পূরক প্রতিবেদনে এডিবি বলেছে, সংক্রমণের নতুন ঢেউয়ের কারণে ২০২১ সালে দক্ষিণ এশিয়ায় প্রবৃদ্ধি আগের পূর্বাভাসের চেয়ে কিছুটা কমে ৮ দশমিক ৯ শতাংশ হতে পারে, যা কিছুটা কমে পরের বছর ৭ শতাংশ হতে পারে।

ভারতের প্রবৃদ্ধির প্রক্ষেপণ এপ্রিলের ১১ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১০ শতাংশ ধরা হয়েছে সম্পূরক প্রতিবেদনে, যেখানে ২০২২ সালে প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৫ হবে বলে পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে।

কয়েকটি দেশে নতুন করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় ২০২১ সালে পুরো উন্নয়নশীল এশিয়ার প্রবৃদ্ধির প্রক্ষেপণ সংশোধন করে এপ্রিলের ৭ দশমিক ৩ শতাংশ থেকে জুলাইয়ে ৭ দশমিক ২ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়েছে।

তবে ২০২২ সালের প্রবৃদ্ধির প্রক্ষেপণ ৫ দশমিক ৩ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৫ দশমিক ৪ শতাংশ ধরা হয়েছে।

মহামারির ধাক্কায় ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ২ শতাংশে নেমে আসে, যা আগের অর্থবছরে ৮ দশমিক ২ শতাংশ ছিল।

গত অর্থবছরের বাজেটে সরকার ৮ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করলেও মহামারির বাস্তবতায় পরে সেটি ৭ দশমিক ৪ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়।

তবে গত ২৮ এপ্রিল প্রকাশিত ‘এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক ২০২১’ প্রতিবেদনে ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৮ শতাংশ হতে পারে বলে প্রক্ষেপেণ তুলে ধরা হয়।

আর বিশ্ব ব্যাংক পূর্বাভাস দিয়েছে, ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ১ শতাংশ হতে পারে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল-আইএমএফ বলেছে, বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হতে পারে সাড়ে ৭ শতাংশ।

এডিবি ২০২০-২১ অর্থবছরের ১১ মাসের তথ্য ধরে প্রতিবেদন প্রকাশ করলেও ইতোমধ্যেই পুরো অর্থবছরের তথ্য প্রকাশ হয়েছে।

তাতে দেখা যায়, গত ২০২০-২১ অর্থবছরে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে ৩৬ দশমিক ১৬ শতাংশ। রপ্তানি আয় বেড়েছে ১৫ দশমিক ১ শতাংশ। রাজস্ব আয়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৫ শতাংশের বেশি।

আর গড় মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ। বাজেটে অবশ্য এই লক্ষ ৫ দশমিক ৪ শতাংশে আটকে রাখার লক্ষ্য ধরেছিল সরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *