জেলা প্রতিনিধি, কিশোরগঞ্জ:
কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দান সিন্দুকে এবার পৌনে দুই কোটি টাকা পাওয়া গেছে। এ ছাড়া বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ ও রুপার অলংকার ছাড়াও বিদেশি মুদ্রা পাওয়া গেছে।

সর্বশেষ চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি খোলা হয়েছিল দানবাক্স। করোনা পরিস্থিতিতে এবার ৬ মাস ৭ দিন পর খোলা হয়েছে এসব দান সিন্দুক।

আজ শনিবার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে মসজিদের আটটি দান সিন্দুক খোলা হয়। সিন্দুক থেকে টাকা বস্তায় ভরা হয়। পরে শুরু হয় টাকা গণনার কাজ।

ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদ কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী পাগলা মসজিদের টাকা গণনার কাজ পরিদর্শন করেছেন।

এ সময় পাগলা মসজিদের সাধারণ সম্পাদক কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ ও সদস্য সিনিয়র সাংবাদিক ও আইনজীবী সাইফুল হক মোল্লা দুলুসহ জেলা প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সর্বশেষ গত ১৫ ফেব্রুয়ারি দান সিন্দুক খোলা হয়েছিল। তখন এক কোটি ৫০ লাখ ১৮ হাজার ৪৯৮ টাকা পাওয়া যায়। যা দানবাক্সগুলো থেকে পাওয়া দানের হিসাবে এ যাবতকালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

এবার করোনা পরিস্থিতিতেও দান সিন্দুকে বিপুল পরিমাণ দান পাওয়া যায়। বিকেল ৪টা পর্যন্ত গণনায় এক কোটি ৭৪ লাখ ৮৩ হাজার ১০৯ টাকা পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মূর্শদ চৌধুরী। এ ছাড়াও বিপুল পরিমাণ স্বর্ণালঙ্কার ও বিদেশি মুদ্রা পাওয়া গেছে বলে জানান তিনি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *