নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঢাকা ৭ আসনের সাংসদ হাজী সেলিমের ছেলে এরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদুল মোল্লার বিরুদ্ধে রাজধানীর চকবাজার থানায় র‌্যাবের দায়ের করা অস্ত্র ও মাদকের পৃথক চার মামলায় আজ আদালতে সাত দিন করে ২৮ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চকবাজার থানার ইন্সপেক্টর (অপারেশন) মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন দুই আসামিকে চার মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোসহ ২৮ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।

আগামী ২ নভেম্বর ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ দিদার হোসাইনের আদালতে আসামিদের উপস্থিতিতে অস্ত্র মামলায় এবং আরেক মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট হাবিবুর রহমান চৌধুরীর আদালতে মাদক মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। গ্রেপ্তার দেখানোর পর আদালত চাইলে রিমান্ড শুনানি হবে বলে আদালত সূত্র জানিয়েছে।

প্রসঙ্গত: গত রবিবার রাজধানীর কলাবাগান এলাকায় এমপি সেলিম পুত্র এরফানকে বহনকরা গাড়িটিতে নৌবাহীনির এক কর্মকর্তার মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগাকে কেন্দ্র করে এরফানের গাড়িতে থাকা তার সহযোগীরা ওই নৌবাহীনি কর্মকর্তাকে জনসম্মুখে বেদম পিটিয়ে রক্তাত্ত করার পর  জনরোষে পড়ে সেখান থেকে সেলিম পুত্র এরফান ও তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়।

ঘটনার পর ধানমন্ডি থানা পুলিশ এরফানের গাড়িচালকসহ গাড়িটিকে থানায় নিয়ে যায়। পরদিন সকালে নির্যাতনের শিকার ওই নৌবাহীনি কর্মকর্তা চার জনের নাম উল্লেখ করে ধানমন্ডি থানায় মামলা করে।

এর পরিপেক্ষিতে সোমবার বেলা ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৮টা পর্যন্ত এমপি হাজী সেলিমের পুরান ঢাকার বহুতল বাড়িতে র‌্যাবের অভিযানে অবৈধ অস্ত্র,ইয়াবা, বিদেশি মদ,ওয়াকিটকিসহ অবৈধ অনেক সরঞ্জাম উদ্ধার করে র‌্যাব। অভিযান চলাকালে অভিযুক্ত এরফানকে র‌্যাব মাতাল অবস্থায় আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে এক বছরের সাজা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *