সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:
এক রাতে অভিযান চালিয়ে পাঁচটি বাল্যবিয়ে বন্ধ করেছেন সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আনিসুর রহমান।
শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে এসব বাল্যবিয়ে বন্ধ করেন তিনি।
একইসঙ্গে বাল্যবিয়ের আয়োজন করায় বর-কনের অভিভাবকদের ৩৫ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়।
এর আগে ১১ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) এক রাতে রেকর্ড সাতটি বাল্যবিয়ে বন্ধ করেন তিনি।

শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকালে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আনিসুর রহমান এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে সন্ধ্যার আগে রাজাপুর ইউনিয়নের সমেশপুর গ্রামে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী (১৩), সন্ধ্যায় পৌরসভার সোহাগপুর গোহাটা এলাকায় অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী (১৩) ও দৌলতপুর ইউনিয়নের শোলাকুড়া গ্রামে নবম শ্রেণির ছাত্রী (১৪), রাতে ক্ষিদ্রগোপরেখী গ্রামে একাদশ শ্রেণির ছাত্রী (১৭) এবং সবশেষে ধুকুরিয়া বেড়া ইউনিয়নের ধুকুরিয়া বেড়া গ্রামে দশম শ্রেণির ছাত্রীর (১৬) বাল্যবিয়ে বন্ধ করা হয়।

পাঁচটি বাল্যবিয়েতেই কনে ছিল অপ্রাপ্তবয়স্ক। এসব বিয়ের আয়োজন করায় অভিভাবকদের কাছ থেকে বিভিন্ন পরিমাণে মোট ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয় এবং প্রত্যেক ক্ষেত্রে কনে প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেবেন না বলে অভিভাবকদের কাছে মুচলেকা নেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, মো. আনিসুর রহমান সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা সহকারী কমিশনারের (ভূমি) দায়িত্বে থাকা অবস্থায় দুইবার এবং বেলকুচিতে ইউএনও হিসেবে আরও একবার এক রাতে সাত বাল্যবিয়ে বন্ধ করেছিলেন। তিনি সিরাজগঞ্জ সদর ও চৌহালীতে একই পদে কর্মকালীন প্রায় দুই শতাধিক বাল্যবিয়ে বন্ধ করে রেকর্ড গড়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *