জামালপুর প্রতিনিধি:

ছেলে-মেয়ে একে অপরকে ভালোবাসে। কিন্তু মেয়ের বাবা ভিক্ষুক হওয়ায় ছেলের বাবা এই সম্পর্ক মেনে নেননি। তাই তাদের ভালোবাসা পরিণয় পাচ্ছিল না। পরে তাদের বিয়ে দেন স্থানীয় চেয়ারম্যান।

নিজ অর্থায়নে নিজে মেয়ের উকিল বাবা হয়ে তাদের সম্পর্ককে বিয়েতে পরিণত করেন তিনি।স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ বাহাদুরাবাদ ঘাষিপাড়া গ্রামের ভিক্ষুক ছাদের আলীর মেয়ে ছাবিনা আক্তার। সে ভালোবাসে পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নের চখারচর এলাকার মুকাদ্দেস আলীর ছেলে সানোয়ার হোসেনকে।

মেয়ের বাবা ভিক্ষুক হওয়ায় সামাজিক লোকলজ্জার ভয়ে ভিক্ষুকের মেয়েকে ঘরে তুলতে নারাজ সানোয়ারের বাবা মুকাদ্দেস। এদিকে ছেলেও সেটি বুঝতে নারাজ। কোনো পথ খুঁজে না পেয়ে দ্বারস্থ হয় এলাকার চেয়ারম্যান সাকিরুজ্জামান রাখালের। চেয়ারম্যান ছেলে এবং মেয়ের কথা শোনেন। পরে তিনি ছেলের বাবার সঙ্গে এবং মেয়ের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে তাদের সম্মতি নিয়ে এই বিয়ে সম্পন্ন করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

অবশেষে গতকাল সোমবার দুপুরে বাহাদুরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে চেয়ারম্যান নিজে উকিল বাপ হয়ে নিজের অর্থায়নে তাদের বিয়ে দেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় মেম্বার, আওয়ামী লীগ নেতারাসহ অন্যরা।

এ বিষয়ে ছেলে-মেয়ের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা খুব খুশি। চেয়ারম্যানকে তারা বাবার জায়গায় স্থান দিয়েছে। তারা এই মহৎ কাজের জন্য সারাজীবন চেয়ারম্যান সাহেবকে স্মরণ করবে বলে জানিয়েছে।

বাহাদুরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাকিরুজ্জামান রাখাল বলেন, আমি তাদের ভালোবাসার গল্প শুনে অভিভূত হয়ে পড়েছি এবং অসহায় ছেলে-মেয়ের ভালোবাসাকে বিয়েতে পরিণত করার উদ্যোগ নিয়েছি। নিজে উকিল বাপ হয়ে নিজ অর্থায়নে তাদের বিয়ের সব কার্যক্রম সম্পন্ন করেছি।

আমি দোয়া করি, তারা তাদের পারিবারিক জীবনে সুখী হোক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *