আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

আফগানিস্তানে তালেবান ক্ষমতা দখলের পরে দেশটি চরম আর্থিক ও মানবিক সংকটের মুখোমুখি বলে জানিয়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দাতব্য সংস্থাগুলো। তাই দেশটিকে এই অর্থনৈতিক সংকট থেকে রক্ষা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন উন্নত দেশগুলোর জোট জি-২০-এর নেতারা।

বুধবার (১৩ অক্টোবর) বিবিসি জানায়, আফগান অর্থনীতি রক্ষায় শত কোটি ডলার দিতে জাতিসংঘ আহ্বান জানানোর পর বিশ্ব নেতারা একটি ভার্চুয়াল সামিটে অংশ নেন। এখানেই আফগানিস্তান সংকট নিয়ে আলোচনা হয় এবং জি-২০-এর নেতারা দেশটিতে চরম আর্থিক সংকট কাটানোর অঙ্গীকার করেন।

জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মের্কেল বলেছেন, দেশটিকে চরম বিশৃঙ্খলার মধ্যে পড়তে দেওয়া ঠিক হবে না।

জাতিসংঘ প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, সেখানে যেসব সাহায্য দেওয়া হবে, তা দিতে হবে স্বাধীন আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর মাধ্যমে, সরাসরি তালেবানের হাতে নয়। তবে এখন পর্যন্ত যতটুকু অর্থ সহায়তা পাওয়া গেছে, তা কয়েক মিলিয়ন ডলার হতে পারে, যা জরুরি খাদ্য ও ওষুধের জন্য দেওয়া হচ্ছে।

নতুন প্রতিশ্রুতির মধ্যে ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডের লেয়েন বলেছেন, আফগানিস্তান এবং প্রতিবেশী যেসব দেশ শরণার্থীদের গ্রহণ করছে, তাদের জন্য একশ’ বিলিয়ন ডলার সহায়তা দেওয়া হবে।

চ্যান্সেলার মের্কেল গত মাসের নির্বাচনে অংশ নেননি, ফলে নতুন সরকার গঠিত হওয়ার পর তাকে সরে যেতে হবে। কিন্তু তিনি আফগানিস্তানের জন্য ৬০০ মিলিয়ন ইউরো সহায়তা দেওয়ার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছেন।

তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘পুরো আফগানিস্তানের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা বা আর্থিক পদ্ধতি যদি ভেঙে পড়ে, তাহলে আমাদের কারও কোনো উপকারই হবে না।

‘তখন আর মানবিক সহায়তাও দেওয়া যাবে না। আসলে সীমারেখা টানা সহজ নয়। কিন্তু চার কোটি মানুষ যদি বিদ্যুৎ না থাকা বা আর্থিক পদ্ধতি ভেঙে পড়ার কারণে চরম বিশৃঙ্খলার মধ্যে পড়ে, সেটা তো আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের লক্ষ্য হতে পারে না,’ তিনি বলছেন।

তিনি বলেন, জাতিসংঘের সহায়তা দেওয়া সব প্রতিষ্ঠানে তালেবানের অংশগ্রহণ থাকা উচিত।

মের্কেলের বক্তব্যের সঙ্গে একমত জানিয়েছেন ইতালির প্রধানমন্ত্রী মারিও দ্রাঘি, যিনি এই ভার্চুয়াল সামিটের আয়োজন করেছিলেন। তিনি বলেছেন, তালেবানের সঙ্গে জি-২০ দেশগুলোর যোগাযোগ করতে হবে। কিন্তু তার মানেই এটা ইসলামপন্থী তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি দেওয়া নয়।

তবে এই ভার্চুয়াল সামিটে জি-২০ দেশগুলোর সব সদস্য উপস্থিত ছিলেন না। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের পক্ষে প্রতিনিধি ছিলেন। তবে বৈঠকে অংশ নেওয়া সব সদস্যই আরও বেশি সহায়তা দিতে সম্মত হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *