নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:

জেলার আড়াইহাজার উপজেলায় ঝাউগড়া এলাকায় তিতাসের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গিয়ে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।রোববার (৬ ডিসেস্বর) দুপুর হতে বিকেল পর্যন্ত আড়াইহাজার পৌরসভার ঝাউগড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসীর সাথে পুলিশের দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে। একপর্যায়ে গোটা এলাকা রণক্ষেত্র পরিণত হয়। এতে করে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ অফিসারসহ ২০-২৫ জন আহত হয়েছেন।

অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গিয়ে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটলেও পিছু না হটে পুলিশ প্রহরায় ও ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে ৩ থেকে ৪ হাজার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে তিতাস কর্তৃপক্ষ।

এদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় দুপুর একটা হতে শুরু করে বিকেল ৪টা পর্যন্ত তা চলে। আর সংঘর্ষের পর ঢাকা- বিশনন্দী ফেরিঘাট সড়ক যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে করে মানুষ চরম ভোগান্তির শিকার হয়।

তিতাসের অভিযোগ আড়াইহাজার পৌরসভার ঝাউগড়া এলাকায় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় কয়েক হাজার অবৈধ গ্যাস সংযোগ নেয় এলাকার লোকজন। এতে করে স্থানীয় কিছু অসাধু লোকজন আর্থিক সুবিধা গ্রহণ করে। কিন্তু সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হয়।

গত কয়েকদিন আগে তিতাস কর্তৃপক্ষ ঝাউগড়া এলাকায় কয়েকশ অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করলেও ফের সংযোগ দিয়ে গ্যাস ব্যবহার করে আসছিল। রোববার দুপুরে উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উজ্জল হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যদের নিয়ে তিতাস অফিসের লোকজন অবৈধ গ্যাস লাইন সংযোগ বিচ্ছিন্ন শুরু করে। প্রায় ৫-৬শ অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েও যায়।

এসময় শত শত নারী-পুরুষ একত্রিত হয়ে অভিযান টিমের উপর হামলা চালায়। এসময় পুলিশ এলাকার লোকদের ধাওয়া দিলে বেপরোয়া হয়ে ওঠে এলাকার লোকজন। পুলিশ, ম্যাজিস্ট্রেট ও তিতাস অফিসের লোকদের লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। তার পর শুরু হয় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ব্যাপক সংঘর্ষ। একপর্যায়ে ঝাউগড়া বাজার এলাকা রণক্ষেত্র পরিণত হয়ে ওঠে।

এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশের এসআই সফিকুল ইসলামসহ ২০ জন আহত হয়। এসময় ম্যাজিস্ট্রেটের গাড়ি ভাঙচুর করে স্থানীয়রা।

পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৮৭ রাউন্ড রাবার্ট বুলেট, ১৩টি কাঁদানে গ্যাস ছুড়ে। এসময় পুলিশ বেশ কয়েকজনকে আটক করে।

তিতাস অফিসের সোনারগাঁ জোনের ডেপুটি ম্যানেজার রিফাত আব্দুল্লাহ জানান, আড়াইহাজার উপজেলার ঝাউগড়া এলাকায় কয়েক হাজার অবৈধ গ্যাস সংযোগ রয়েছে। রোববার আমরা অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গেলে আমাদের অভিযানের টিমের উপর হামলা চালায়। পুলিশ সদস্যসহ আমাদের কয়েকজন আহত হয়েছে। আমাদের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

আড়াইহাজার থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত ) শওকত হোসেন জানান, তিতাসের লোকজন অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গেলে এলাকার লোকজন হামলা চালায়। একপর্যায়ে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশ সদস্যসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৮৭ রাউন্ড রাবার বুলেট ও ১৩টি কাঁদানে গ্যাস ছোড়া হয়।

আড়াইহাজার উপজেলার নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সোহাগ হোসেন জানান, উপজেলার ঝাউগড়া এলাকায় ১৪টি স্পটে কয়েক হাজার অবৈধ গ্যাস সংযোগ রয়েছে। কিছুদিন আগে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করলেও ফের সংযোগ নিয়ে গ্যাস ব্যবহার করছে। রোববার তিতাস অফিস অভিযান চালাতে গেলে এলাকার লোকজন হামলা চালায়। এসময় ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *